শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৪:৪৪ অপরাহ্ন

বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের নিয়ে বিসিবির ছক

রিপোর্টারের নাম
আপডেট : বৃহস্পতিবার, ১৬ জুলাই, ২০২০
ফাইল ছবি

বিশ্বকাপজয়ী আকরবদের নিয়ে বড় একটি পরিকল্পনা প্রণয়নের প্রস্তুতি নিচ্ছিল বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। তবে করোনা প্রকোপের পড়েও অনুর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপজয়ী ক্রিকেটারদের নিয়ে পূর্বের পরিকল্পনা থেকে সরে আসতে রাজি নয় বিসিবি।

সে পরিকল্পনা মাথায় রেখে দলটির খেলোয়াড়দের দুই বছরের চুক্তিতে নিয়ে আসে বাংলাদেশ ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি। যাদের প্রত্যেকের মাসিক বেতন ধরা হয়েছে এক লাখ টাকা। এই দলটিকে দুই মাসের জন্য ইংল্যান্ডে কন্ডিশনিং ক্যাম্প করানো যায় কি-না সেটিও খতিয়ে দেখছে বিসিবি। অনুর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট দলের ওই সদস্যরা চুক্তি অনুযায়ী মাসিক বেতন হিসেবে এক লাখ টাকা করে পেলেও তাদেরকে এখন নিজ গৃহেই বাস করতে হচ্ছে। কারণ কোভিড-১৯ এর সংক্রমণের কারণে মার্চের মধ্যভাগ থেকেই থেমে গেছে দেশের সব ধরনের ক্রিকেটীয় কার্যক্রম।

বিসিবির গেম ডেভেলপমেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান খালেদ মাহমুদ সুজন এক বৈঠক শেষে বলেন, ‘আমরা এই ছেলেদের জন্য সেইরকম মান সম্পন্ন কিছুই ভাবছি, যাতে তারা দেশের জন্য আরও বড় কিছু নিয়ে আসতে পারে। জুনে আমরা ইংল্যান্ডে একটি কন্ডিশনিং ক্যাম্প করার কথা ভেবেছিলাম। কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে সেটি সম্ভব হয়নি। ইংল্যান্ডে যেহেতু ক্রিকেটীয় কর্মকান্ড শুরু হয়েছে, সেহেতু সেপ্টেম্বর-অক্টোবরে সেটি করা যেতে পারে। কিন্তু ওই সময়ে আমরা আমাদের কাঙ্খিত কন্ডিশন পাবো না। তাই সেটি আপাতত স্থগিত রাখতে হবে। কিন্তু আগামী বছর আমরা অবশ্যই এই ক্যাম্পের আয়োজন করব।’

তিনি আরও বলেন, ‘ছেলেরা ইংল্যান্ডের মাটিতে কিছু ম্যাচ খেলারও সুযোগ পাবে। আমাদের মুল লক্ষ্য হচ্ছে তাদের প্রশিক্ষণ দেওয়া। এ জন্য বিশেষজ্ঞ কোচদেরও আমন্ত্রণ জানাবো। একই সময় আমরা কিছু ম্যাচও খেলব। আমাদের মনে হয় ইংলিশ মৌসুমের শুরুতে যদি আমরা ইংল্যান্ডে খেলোয়াড়দের প্রশিক্ষণ শুরু করতে পারি, তাহলে তারা দারুণ অভিজ্ঞতা অর্জন করবে।’

দেশের বাইরে অনুশীলন ও ম্যাচ আয়োজনের গুরুত্বও তুলে ধরেছেন তিনি, ‘আমাদের দেশে অফ মৌসুমে বৃস্টির কারণে কিছুই করতে পারব না। কিন্তু আমরা যদি বিদেশের মাটিতে অনুশীলন ও ম্যাচের আয়োজন করতে পারি, তাহলে তাদের দক্ষতা অনেকগুণ বেড়ে যাবে এবং নিজেদেরকে ভবিষ্যতের চ্যালেঞ্জ গ্রহণের উপযুক্ত করে গড়তে পারবে।’

অনুর্ধ্ব-১৯ দলের এই ক্রিকেটারদের বিশ্বমানের খেলোয়াড় হিসেবে গড়ে তোলার জন্য ইতোমধ্যে বাজেট প্রনয়ণ হয়ে গেছে। তিনি বলেন, ‘তাদের নিয়ে আমাদের দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনা রয়েছে। এ জন্য প্রয়োজনীয় বাজেটও প্রস্তুত। কোভিড-১৯ এর কারণে এই বছরটি ভেসে গেছে। কিন্তু আগামী বছরটি এখনও হাতে আছে। বেশি করে ম্যাচ খেলে এই ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করতে হবে।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আবহাওয়া

%d bloggers like this:
%d bloggers like this: