শুক্রবার, ২৬ জুলাই ২০২৪, ০১:৩১ পূর্বাহ্ন

সরকার বিজয় দিবসকে পরাজয় দিবসে পরিণত করেছে : মঈন খান

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপডেট : শনিবার, ১৬ ডিসেম্বর, ২০২৩
সরকার বিজয় দিবসকে পরাজয় দিবসে পরিণত করেছে : মঈন খান

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

আওয়ামী লীগ সরকার বিজয় দিবসকে পরাজয় দিবসে পরিণত করেছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আব্দুল মঈন খান।

শনিবার (১৬ ডিসেম্বর) রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে আয়োজিত বিজয় শোভাযাত্রার আগে অনুষ্ঠিত সংক্ষিপ্ত সমাবেশে এ মন্তব্য করেন তিনি। বিজয় দিবস উপলক্ষে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ বিএনপির উদ্যোগে এ শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়।

এ শোভাযাত্রার মধ্যদিয়ে ২৮ অক্টোবরের মহাসমাবেশের পর প্রথমবারের মতো নয়াপল্টনে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে জড়ো হন নেতাকর্মীরা। তবে কার্যালয় এখনো বন্ধ। বেলা পৌনে ২টায় ওলামা দলের নেতা আবুল হোসেনের কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে শোভাযাত্রার আগে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ শুরু হয়। এর পর মোনাজাত করা হয়।

মইন খান বলেন, ৫২ বছর আগে মুক্তিযুদ্ধে বিজয় লাভ করে স্বাধীন দেশের সূচনা হয়েছিল। বিজয় হয়েছিল গণতন্ত্রের। বর্তমান সরকার সেই গণতন্ত্র হত্যা করে আজকে বিজয় দিবসকে পরাজয় দিবসে পরিণত করেছে।

সাহস থাকলে ক্ষমতা ছেড়ে নির্বাচন দিন মন্তব্য করে ড. মঈন খান বলেছেন, বায়ান্ন বছর আগে মুক্তিযুদ্ধে বিজয় লাভ করে স্বাধীন দেশের সূচনা হয়েছিল। বিজয় হয়েছিল গণতন্ত্রের। বর্তমান সরকার সেই গণতন্ত্র হত্যা করে বিজয় দিবসকে পরাজয় দিবসে পরিণত করেছে।

তিনি বলেন, পাকিস্তান আমলে ২২ পরিবারমুক্ত অর্থনীতি প্রতিষ্ঠার জন্য মুক্তিযুদ্ধ হয়েছিল। বর্তমানে ২২ হাজারেরও বেশি পরিবার সৃষ্টি করে অলিগার্কি প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে বিজয় দিবসকে পরাজয় দিবসে পরিণত করেছে সরকার।

এ সময় সৎ সাহস থাকলে বর্তমান সরকারকে ক্ষমতা ছুড়ে ফেলে দিয়ে ভোটে অবতীর্ণ হওয়ার আহ্বান জানান বিএনপির এ জ্যেষ্ঠ নেতা।

মঈন খান বলেন, সাহস থাকলে পদত্যাগ করে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন দিন। আজ ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস। কিন্তু বিজয় দিবসকে পাল্টে দিয়েছে সরকার। তারা এখন পরাজয় দিবসে পরিণত করেছে। আমরা রাজপথে আছি এবং থাকবো।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির এ সদস্য বলেন, দেশের মানুষের ভোটাধিকার ও গণতান্ত্রিক অধিকার হরণ করে প্রতিবাদী মানুষকে জেলে পুরে রেখেছে এ সরকার। এভাবে তারা বিজয় দিবসকে পরাজয় দিবসে পরিণত করেছে। সরকারের সাহস থাকলে পদত্যাগ করে নির্বাচন দিন। যেমনটি ১৯৯৬ সালে আমাদের দেশনেত্রী খালেদা জিয়া তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনের লক্ষ্যে ঘোষণা দিয়েছিলেন।

তিনি বলেন, আজকে সরকার নাকি দেশে উন্নয়নের জোয়ার বইয়ে দিয়েছে। তাহলে ক্ষমতা ছেড়ে দিয়ে সুষ্ঠু নির্বাচন দিন। তবেই দেখা যাবে জনগণের কাছে কে জনপ্রিয়? এখন যেভাবে নির্বাচনের সিট ভাগাভাগি চলছে তাকে নির্বাচন বলে না। এটা বিশ্বের কোথাও নেই। বিশ্বের কোথাও ভোটচুরি করে না।

সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, ২০১৪ সালের নির্বাচনে প্রার্থী ছিল না। ২০১৮ সালের নির্বাচন রাতেই হয়ে গেছে। এবারে নির্বাচনকে বলা হচ্ছে ডামি নির্বাচন। এই নির্বাচন করতে গিয়ে অযথা আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে।

নির্বাচনে কারা নির্বাচিত হবেন তা সবাই জানে। এত ভণিতা না করে এদের নাম ঘোষণা করে দিলেই হলো। হাজার কোটি টাকা খরচ করে ইলেকশন ইলেকশন খেলার কোনো প্রয়োজন নাই।

তিনি আরও বলেন, এই রসিকতা ও খেলার জন্য মুক্তিযুদ্ধ করিনি। আমরা চাই দেশের গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা হোক। প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ইলেকশন হোক। সেই নির্বাচন আদায়ের জন্য আমরা আন্দোলন করছি। এই লড়াই চলবে।

১৬ই ডিসেম্বর বিজয় দিবস উপলক্ষে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ বিএনপির উদ্যোগে র‌্যালি করে বিএনপি। পরে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান নিতাই রায় চৌধুরীর সভাপতিত্বে সমাবেশ হয়।

শোভাযাত্রায় বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা নজরুল ইসলাম খান, ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন, প্রকৌশলী রিয়াজুল ইসলাম রিজু, প্রকৌশলী আশরাফ উদ্দিন বকুল, ড. এবিএম ওবায়দুল ইসলাম, কামরুজ্জামান রতন, তাইফুল ইসলাম টিপু, কাদের গণি চৌধুরী, বজলুল করিম চৌধুরী আবেদ, হাসান মামুন, অধ্যাপক ড. লুৎফর রহমান, অধ্যাপক ড. ছিদ্দিকুর রহমান খান, অধ্যাপক শামসুল আলম সেলিম, অধ্যাপক নূরুল ইসলাম, অধ্যাপক কামরুল আহসান, প্রকৌশলী মাহবুব আলমসহ ছাত্রদল, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, মহিলা দল, কৃষকদল, মৎস্যজীবী দল, শ্রমিক দলসহ বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের হাজারো নেতাকর্মী অংশ নিয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আবহাওয়া