রবিবার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ০২:১৭ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
বাংলাদেশ বা ভারত থেকে এসেছে করোনা: চীনের দাবি শিলটন এখনও ক্ষমা করেননি ম্যারাডোনাকে বিয়েতে জামাইকে একে ৪৭ উপহার শাশুড়ির (ভিডিও) ডাঙ্গা কামদিয়া মসজিদ ও মাদ্রাসা ভাঙার প্রতিবাদে মানববন্ধন যুবলীগ হবে সন্ত্রাস ও দুর্নীতিবাজ মুক্ত: নিক্সন চৌধুরী পৌর নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হলেন যারা স্বামীর সাথে বিচ্ছেদ নিয়ে যা বললেন শবনম ফারিয়া প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু রেলসেতুর ভিত্তি স্থাপন করবেন রোববার ম্যারা+ ডোনা = ম্যারাডোনার নামে জমজ দুই বোন নিজের নাম পাল্টে ‘তারা’ রাখলেন দীপিকা! ম্যারাডোনাকে শেষবারের মতো একটু দেখা করোনাভাইরাসের মধ্যেই নোরোভাইরাসের হানা রুপগঞ্জ গাউছিয়ায় হাটের দিনে লক্ষাধিক লোকের সমাগম টাঙ্গাইলে কোরআন অবমাননার প্রতিবাদে সড়ক অবরোধ আমতলীতে রোগীর চিকিৎসা করছে ওয়ার্ড বয় পৌরসভা নির্বাচনের দাবিতে আওয়ামী লীগের পথসভা ফরিদপুরে দুই দলের সংঘর্ষে আহত ২০  বদলে যাচ্ছে সদরঘাট ও বুড়িগঙ্গারপার ৮ লাখ টাকা দামের হীরা-মণি-মুক্তাখচিত মাস্ক নেপোলির সবাই ম্যারাডোনা ইউরোপা লীগের ম্যাচে!

মেয়াদোত্তীর্ণ ঝুঁকিপূর্ণ ১৫ হাজার অটোরিকশা চলছে ঢাকায়

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপডেট : মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর, ২০২০
মেয়াদোত্তীর্ণ ঝুঁকিপূর্ণ ১৫ হাজার অটোরিকশা চলছে ঢাকায়
ফাইল ছবি

ঢাকার অলিগলি থেকে শুরু করে ব্যস্ত বাণিজ্যিক এলাকায় অবাধে চলাচল করছে আনফিট ও আয়ুষ্কাল পেরিয়ে যাওয়া সিএনজি অটোরিকশা। যার সংখ্যা প্রায় ১৫ হাজার। এছাড়া ঢাকার আশপাশের এলাকা থেকে আসা প্রাইভেট অটোরিকশাও অবাধে চলছে ঢাকা মহানগরীতে। আয়ুষ্কাল পেরিয়ে যাওয়া সিএনজি অটোরিকশা যাত্রী এবং চালক সবার জন্যই ঝুঁকিপূর্ণ।

ঢাকা মহানগরীতে সরকার অনুমোদিত সিএনজি অটোরিকশার সংখ্যা প্রায় ১৫ হাজার। বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ) বলছে, মেয়াদোত্তীর্ণ হয়ে যাওয়ায় এসব অটোরিকশার সবই প্রতিস্থাপন করা হয়েছে। সংস্থাটির হিসাবে ঢাকায় মেয়াদোত্তীর্ণ অটোরিকশা নেই দেখানো হলেও বাস্তবতা হচ্ছে, ঢাকার অলিগলি থেকে শুরু করে ব্যস্ত বাণিজ্যিক এলাকায় অবাধে চলাচল করছে আনফিট ও আয়ুষ্কাল পেরিয়ে যাওয়া সিএনজি অটোরিকশা, যার সংখ্যাও প্রায় ১৫ হাজার বলে জানিয়েছে মালিক-শ্রমিক সংগঠনগুলো।

 


বেবিট্যাক্সি, টেম্পোর মতো টু-স্ট্রোকের গাড়িগুলো বদলে ২০০১ সালে ঢাকায় ১২ হাজার ৮২৬টি সিএনজি অটোরিকশা নামানোর অনুমতি দেয় সরকার। পরবর্তী সময়ে মিশুকের বদলে ঢাকায় নামানো হয় আরো প্রায় আড়াই হাজার সিএনজি অটোরিকশা। মালিকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ওই সময় ২০০২ ও ২০০৩ মডেলের প্রায় ১৫ হাজার সিএনজি অটোরিকশা ঢাকায় নামানো হয়, যেগুলোর আয়ুষ্কাল ছিল নয় বছর। কয়েক দফা মেয়াদ বাড়িয়ে সেগুলো ২০১৮ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত চালানো হয়। এরপর মেয়াদোত্তীর্ণ সিএনজি অটোরিকশাগুলো প্রতিস্থাপন শুরু হয়।

প্রথমে এগুলোর চেসিস ও ইঞ্জিন নম্বর পরীক্ষা করে গ্যাস সিলিন্ডার খুলে রাখা হয়। এরপর চেসিস, ইঞ্জিন নম্বর ও নম্বর প্লেটগুলো গ্যাস কাটার দিয়ে মুছে দেয়া হয়। সব শেষে প্রতিটি খালি ফ্রেম এক্সকেভেটর (বুলডোজার) দিয়ে ধ্বংস করা হয়। ধ্বংস করা সিএনজি অটোরিকশার বিপরীতে মালিকদের সমসংখ্যক নতুন অটোরিকশা নিবন্ধন দেয়া হয়।

বিআরটিএর কর্মকর্তা ও সিএনজি অটোরিকশা মালিকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, মেয়াদোত্তীর্ণ হয়ে যাওয়ায় ঢাকার প্রায় সব সিএনজি অটোরিকশা প্রতিস্থাপন করা হয়েছে। কম-বেশি ৫০০টির মতো অটোরিকশা প্রতিস্থাপন হয়নি, যেগুলো আর চলাচল করছে না বলে মনে করছেন তারা।

ঢাকায় এখনো মেট্রো ‘থ’ নম্বর প্লেট নিয়ে যাত্রী পরিবহন করছে অনেক সিএনজি অটোরিকশা। বিআরটিএর হিসাবে এ সিরিজের নম্বর প্লেট নিয়ে ঢাকায় কোনো মেয়াদোত্তীর্ণ সিএনজি অটোরিকশা চলার কথা নয়।

যদিও সরেজমিন ঢাকার হাতিরঝিল, মহাখালী, গাবতলী, গুলশান, ধানমন্ডি, রায়েরবাজার, মোহাম্মদপুর বেড়িবাঁধ, খিলগাঁও, বনশ্রী, যাত্রাবাড়ী, জুরাইনসহ বিভিন্ন এলাকায় অবাধে চলাচল করছে ঢাকা মেট্রো ‘থ’ সিরিজের সিএনজি অটোরিকশা।

আরও পড়ুন : মোটরযানের বীমা নিয়ে মামলা না করতে পুলিশকে চিঠি

প্রতিস্থাপন হওয়া সত্ত্বেও কীভাবে পুরনো সিএনজি অটোরিকশা চলাচল করছে, জানতে চাইলে ঢাকা মহানগর সিএনজি অটোরিকশা মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের সদস্য সচিব এটিএম নাজমুল হাসান বলেন, বিআরটিএতে পুরনো সিএনজি অটোরিকশা ধ্বংস করার সময় অনেকেই সেগুলোর বডি কৌশলে সংগ্রহ করেছেন। পরে সেগুলোতে ইঞ্জিন লাগিয়ে চালাচ্ছেন। পুলিশ-প্রশাসন থেকে বিআরটিএর কর্মকর্তা-সবার চোখের সামনে দিয়েই এ কাজটি করা হচ্ছে।

ঢাকা মেট্রো ‘থ’ সিরিজ নিয়ে হাতিরঝিলে প্রতিদিন শতাধিক সিএনজি অটোরিকশা চলাচল করছে। সিএনজি অটোরিকশা মিটারে চালানোর নিয়ম হলেও হাতিরঝিলে সেসবের বালাই নেই। চালকের দুপাশে বসেন দুজন, পেছনে তিনজন। ভাড়া জনপ্রতি ২৫ টাকা।

কোনোটিতেই নেই ভাড়া নির্ণয়ের মিটার। আসন থেকে স্টিয়ারিং হুইল সবই নড়বড়ে। আনফিট এসব ত্রিচক্রযানের গ্যাস সিলিন্ডারও মেয়াদোত্তীর্ণ। বিকল্প গণপরিবহন না থাকায় বাড্ডা-রামপুরা থেকে কারওয়ান বাজারের মধ্যে যাতায়াতকারী যাত্রীরা ঝুঁকি নিয়েই এসব সিএনজিতে উঠছেন প্রতিদিন।

অটোরিকশাগুলোর গ্যাস সিলিন্ডারের একটা নির্দিষ্ট মেয়াদ থাকে। মেয়াদ শেষে সেগুলো ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে যায়। ফলে যেকোনো সময় বিস্ফোরিত হয়ে ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। দীর্ঘদিন চলার কারণে ইঞ্জিনের কার্যক্ষমতা কমে আসার পাশাপাশি বডি-ফ্রেমও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এসব কারণে সিএনজি অটোরিকশাগুলোর প্রতিস্থাপন করা জরুরি হয়ে পড়েছিল, এমনটাই বলছেন বিআরটিএর কর্মকর্তারা।

রাজধানীতে ‘ঢাকা মেট্রো’ ছাড়া অন্য কোনো এলাকা থেকে নিবন্ধন পাওয়া সিএনজি অটোরিকশা চালানোর কোনো সুযোগ নেই। তার পরও চলছে ‘ঢাকা মেট্রো’র বাইরের সিএনজি অটোরিকশা। সবচেয়ে বেশি চলছে ঢাকা জেলা থেকে নিবন্ধন পাওয়া সিএনজি অটোরিকশাগুলো।

এর বাইরে পার্শ্ববর্তী নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর ও মুন্সীগঞ্জ থেকে নিবন্ধন পাওয়া অসংখ্য সিএনজি অটোরিকশা ঢাকায় চলাচল করছে বলে অভিযোগ করেছেন ঢাকা মহানগর সিএনজি অটোরিকশা মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের নেতারা।

অন্যদিকে বিআরটিএ বলছে, ঢাকা মহানগরীতে বাইরের সিএনজি অটোরিকশা চালানোর যেমন সুযোগ নেই, তেমনি মেয়াদোত্তীর্ণ কিংবা আনফিট সিএনজি অটোরিকশাও চলছে না। এ সম্পর্কে জানতে চাইলে বিআরটিএর চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ মজুমদার বলেন, ঢাকায় কোনো অবৈধ কিংবা মেয়াদোত্তীর্ণ সিএনজি অটোরিকশা চলাচল করে না। তার পরও আমাদের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা এসব বিষয়ে যেমন দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন, তেমনি পুলিশও তৎপর। ঢাকার রাস্তায় ১৫ হাজার অবৈধ-মেয়াদোত্তীর্ণ সিএনজি অটোরিকশা চলাচলের তথ্যটি সঠিক নয় বলে দাবি করেছেন তিনি। এক্ষেত্রে বিআরটিএর পরিসংখ্যানেই ভরসা রাখছেন সংস্থাটির চেয়ারম্যান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আবহাওয়া

%d bloggers like this:
%d bloggers like this: