বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ০৪:৩৮ পূর্বাহ্ন

মিয়ানমার থেকে কেউ অস্ত্র নিয়ে ঢুকতে পারবে না: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

চট্টগ্রাম জেলা প্রতিনিধি
আপডেট : শুক্রবার, ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪
মিয়ানমার থেকে কেউ অস্ত্র নিয়ে ঢুকতে পারবে না: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

চট্টগ্রাম জেলা প্রতিনিধি : 

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেছেন, মিয়ানমারের বিভিন্ন স্থানে সংঘাত হচ্ছে। তাই সীমান্তে বিজিবি সতর্ক অবস্থান আছে। মিয়ানমার থেকে কেউ অস্ত্র নিয়ে এ দেশে ঢুকতে পারবে না।

শুক্রবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে চট্টগ্রাম পুলিশ সুপার কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে জেলার আইনশৃঙ্খলা সংক্রান্ত মতবিনিময় সভা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, আপনারা দেখেছেন, সংঘাতের কারণে মিয়ানমার থেকে অনেকে এ দেশে এসেছে। আমরা তাদের আবার ফেরত পাঠিয়েছি। আমরা সীমান্তে বিজিবির ফোর্স বাড়িয়েছি। কোস্ট গার্ড, নেভি ও পুলিশও সজাগ রয়েছে। ওদিক থেকে অস্ত্র নিয়ে কারও আমাদের ভূখণ্ডে আসার সুযোগ নেই।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, মিয়ানমারের শুধু আরাকান আর্মিরা নয় তাদের অনেকগুলো গ্রুপ তৈরি হয়ে এই বিদ্রোহ চলছে। বেশ কিছুদিন ধরে এই অঞ্চলে যুদ্ধ চলছে। তাদের কারণে আমাদের সীমান্তে কিছু সমস্যা তৈরি হয়েছে সেটি সত্য। তারা যতই গোলাগুলি করুক, আমরা তার প্রতিবাদ করছি। নেভি, কোস্ট গার্ডদের সজাগ রেখেছি। পাশাপাশি আমাদের পুলিশ সেখানে সজাগ রয়েছে।

অস্ত্র আনা প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, হ্যাঁ পরিত্যক্ত অবস্থায় আরকান আর্মিরা দুই-চারটা অস্ত্র নিয়ে আসছে। হয়তো তাদের অন্য কোন মোটিভ থাকতে পারে, তারা সবাই ধরা পড়েছে। বিজিবি তাদেরকে আটক করেছে। আপনারা নিশ্চিন্তে থাকতে পারেন যে আমাদের বিজিবি কঠোর অবস্থানে রয়েছে।

তিনি বলেন, আমাদের পুলিশ বাহিনীসহ সকল নিরাপত্তা বাহিনী নির্বাচন কমিশনের মাধ্যমে দেশে একটি সুন্দর অবাধ নির্বাচন উপহার দিয়েছেন। যেটা প্রধানমন্ত্রীরও শক্ত একটি ভূমিকা ছিল। শুধু দেশবাসী না সারা বিশ্বের মানুষ লক্ষ্য করেছে যে সুন্দর একটি নির্বাচন হয়েছে। আজ পর্যন্ত কেউ কিছুই বলতে পারেনি। আমাদের প্রধানমন্ত্রী টানা চতুর্থবারের মতো সরকার গঠন করেছেন। তার যে উন্নয়নের অগ্রযাত্রা সেটা আগের মতই চলবে। আমরা মনে করি, বাংলাদেশের জন্য এটা আশীর্বাদস্বরূপ।

নির্বাচনে দলীয় প্রতীক নৌকা থাকবে না জানিয়ে তিনি বলেন, আমাদের দলীয়ভাবে সিদ্ধান্ত হয়েছে যে, জাতীয় নির্বাচন ছাড়া অন্য কোন নির্বাচনে দলীয় প্রতীক ব্যবহার করবে না। সামনের নির্বাচনগুলোতে যেহেতু নৌকা প্রতীক থাকবে না, যার ফলে প্রার্থীরা নিজ নিজ প্রতীক নিয়ে প্রতিযোগিতা করবেন। তারা কে কত জনপ্রিয় সেটাই প্রমাণ করবে। আমরা মনে করি, জনপ্রিয় লোকগুলোই নির্বাচনে আসুক। জনপ্রিয় লোকগুলো নির্বাচনে আসলে তারা এলাকায় উন্নয়ন করবে। জাতীয় নির্বাচন যেভাবে হয়েছে আমাদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সেই অভিজ্ঞতায় আগামী নির্বাচনগুলোর দায়িত্ব পালন করবে।

তিনি আরও বলেন, আপনারা দেখছেন বিএনপি আগেও বলেছে এখনও বলছে এই সোমবার বা মঙ্গলবার দিন সরকার পতন হয়ে যাবে। এবং খালেদা জিয়া যাই বলবে তাই হবে। এ সমস্ত কথাগুলোই আপনারা শুনছেন। আমরাও দেখেছি এদেশের মানুষ তাদের থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে।

ড. ইউনূসের প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, আমরা আইনের বাইরে কিছু করছি না। ড. ইউনূসের ব্যাপারটা সম্পূর্ণ আদালতের ব্যাপার। আদালতের নির্দেশনা যেভাবে আসছে সেভাবেই কাজ হচ্ছে। এর বাইরে সরকার কিংবা পুলিশ কেউ কিছু করছে না।

এসময় চট্টগ্রাম জেলা পুলিশ সুপার এসএম শফিউল্লাহ, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার কৃষ্ণ পদ রায় ও চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামান উপস্থিত ছিলেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আবহাওয়া