রবিবার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ০১:৫৯ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
বাংলাদেশ বা ভারত থেকে এসেছে করোনা: চীনের দাবি শিলটন এখনও ক্ষমা করেননি ম্যারাডোনাকে বিয়েতে জামাইকে একে ৪৭ উপহার শাশুড়ির (ভিডিও) ডাঙ্গা কামদিয়া মসজিদ ও মাদ্রাসা ভাঙার প্রতিবাদে মানববন্ধন যুবলীগ হবে সন্ত্রাস ও দুর্নীতিবাজ মুক্ত: নিক্সন চৌধুরী পৌর নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হলেন যারা স্বামীর সাথে বিচ্ছেদ নিয়ে যা বললেন শবনম ফারিয়া প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু রেলসেতুর ভিত্তি স্থাপন করবেন রোববার ম্যারা+ ডোনা = ম্যারাডোনার নামে জমজ দুই বোন নিজের নাম পাল্টে ‘তারা’ রাখলেন দীপিকা! ম্যারাডোনাকে শেষবারের মতো একটু দেখা করোনাভাইরাসের মধ্যেই নোরোভাইরাসের হানা রুপগঞ্জ গাউছিয়ায় হাটের দিনে লক্ষাধিক লোকের সমাগম টাঙ্গাইলে কোরআন অবমাননার প্রতিবাদে সড়ক অবরোধ আমতলীতে রোগীর চিকিৎসা করছে ওয়ার্ড বয় পৌরসভা নির্বাচনের দাবিতে আওয়ামী লীগের পথসভা ফরিদপুরে দুই দলের সংঘর্ষে আহত ২০  বদলে যাচ্ছে সদরঘাট ও বুড়িগঙ্গারপার ৮ লাখ টাকা দামের হীরা-মণি-মুক্তাখচিত মাস্ক নেপোলির সবাই ম্যারাডোনা ইউরোপা লীগের ম্যাচে!

মালবাহী গাড়ির নাম ‘কুত্তা গাড়ি’

সিরাজগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি
আপডেট : বৃহস্পতিবার, ১৯ নভেম্বর, ২০২০
মালবাহী গাড়ির নাম 'কুত্তা গাড়ি'
'কুত্তা গাড়ি'

মালবাহী গাড়ির নাম কুত্তাগাড়ি। সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় এক ধরনের মালমাল বহনকারী গাড়ির নাম দেয়া হয়েছে কুত্তাগাড়ি। এ গাড়ির নাম নিয়ে অনেকেই বিস্ময় প্রকাশ করলেও নাম পরিবর্তনের উদ্যোগ নেয়া হয়নি। বরং সবখানে চলতে পারায় কুত্তাগাড়ি দিন দিন জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।

কেন কিভাবে এই নামকরণ হলো সেটা স্পষ্ট না হলেও স্থ্যানীয়দের সঙ্গে ভিন্ন ভিন্ন মত পাওয়া গেছে। তবে সকলেই এক জায়গায় একমত তা হলো এই গাড়ির সামর্থ। যে কোনো গাড়ি যে কোনো জায়গায় যেতে পারে না, এই ‘কুত্তা গাড়ি’ সবখানেই যেতে পারে।

গাড়ির শক্তি বেশি এই জন্যই নাকি গাড়ির নাম কুত্তা গাড়ি। আবার কেউ বলছেন, এই গাড়ি পানির মধ্যেও নেমে চলতে পারে। অর্থাৎ অর্ধেক ডুবে গেলে ও নাকি চলতে পারে, এমন বৈশিষ্টের জন্যও নাকি গাড়িটিকে কুত্তা গাড়ি বলা হয়।

তবে এই গাড়িকে আসলেই উঁচু নিচু খালবিল এলাকায় পৌঁছে যেতে দেখা গেছে। ইট মাটি ও মালামাল বহনে সক্ষম কুত্তা গাড়ি অধিকাংশ ক্ষেত্রেই ব্যবহৃত হয় মাটি ভরাটের কাজে।

এই গাড়িতে ৯ থেকে ১০ টন মালামাল নাকি খুব সুন্দরভাবেই ধরে যাবে। তবে সাইজে ছোটও কিছু গাড়ি দেখা যায়।

কবে এই গাড়ি আবিস্কার হয়েছে এই বিষয়ে জানা যায় খুব বেশিদিন আগে এই গাড়ির প্রচলন ঘটেনি। সাত থেকে আট বছর আগে এই গাড়ির প্রচলন শুরু হয় উল্লাপাড়ায়। উল্লাপাড়ার বাইরে এই গাড়ি তেমনটা দেখা যায় না। তবে নছিমন করিমনের পাশপাশি কুত্তাগাড়ি প্রচুর পরিমাণে উল্লাপাড়ায় রয়েছে। এর আবিস্কারক কে তা জানা যায়নি। এই গাড়ি নিয়ে সংবাদ মাধ্যমেও তেমন কোনো খবর নেই।

আরও পড়ুন : অতিরিক্ত যাত্রী বহনের দায়ে বিআরটিসি’র চালক বরখাস্ত

তবে শাইখ সিরাজ এই গাড়ির বিভিন্ন বিষয় নিয়ে টেলিভিশন চ্যানেলে অনুষ্ঠান প্রচার করেছেন। ঢাকার ফটোগ্রাফার ফিরোজ চৌধুরী এই গাড়ি নিয়ে একটি বিশ্লেণমূলক ভিডিও বানিয়েছেন। যা সোশ্যাল মিডিয়ার মানুষদেরকে বেশ আকৃষ্ট করেছে। গাড়িটি বানাতে খরচ হয় সাড়ে ৪ থেকে ৫ লাখ টাকার মতো।

একজন স্থানীয় ব্যক্তির ভাষ্য, কুত্তা (কুকুর) যেমন সব জায়গায় যায় এই গাড়িও সব জায়গায় যায়, মূলত এই গাড়িকে এই কারণেই কুত্তা গাড়ি হিসেবে অভিহিত করা হয়। অভিহিত বললে ভুল হবে। এই গাড়ির নাম দেওয়া হয়েছে কুত্তা গাড়ি, অন্য নামে কেউ চিনবে না।

কুত্তা গাড়ির ইঞ্জিন মূলত একবারে সামনে উন্মুক্ত। স্থানীয়ভাবে তৈরি এই গাড়ির জন্য শ্যালো মেশিন দিয়ে এর ইঞ্জিন তৈরি করা হয়। অশ্বশক্তির শ্যালো মেশিনের ওপর নির্ভর করে এর কর্ম দক্ষতা। এর যেমন ইতিবাচক দিক রয়েছে তেমনই এই গাড়ির নেতিবাচক দিকও রয়েছে। স্থানীয়ভাবে তৈরি এই গাড়ি দ্বারা অনেক দুর্ঘটনার খবরও সংবাদ মাধ্যমে এসেছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আবহাওয়া

%d bloggers like this:
%d bloggers like this: