বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ০৯:০০ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
দেশ ও জনগণের কল্যাণে কাজ করুন: বৌদ্ধ নেতাদের রাষ্ট্রপতি সাংবাদিকরা সহায়তা করলে আদালতে মামলা কমবে : প্রধান বিচারপতি গণতন্ত্রের জন্য যে দেশ স্বাধীন হয়েছে, সে দেশে এখন আর গণতন্ত্র নেই : শামসুজ্জামান দুদু লু এলেন, ভাবলাম সম্পর্ক ভালো করতে চায় কিন্তু নিশিরাতে স্যাংশন দিলো: কাদের ১ মিনিটের ‘ঝড়’ তুললেন মাহি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচের আম্পায়ার বাংলাদেশি সৈকত অবাধ্য পর্যটক সামলাতে দেওয়াল তুলছে জাপান হিমালয়সহ পাহাড়-পর্বত রক্ষায় ঐক্যবদ্ধ হতে হবে: পরিবেশমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুত স্মার্ট বাংলাদেশ গঠনে কারিগরি শিক্ষার বিকল্প নেই : স্পিকার নির্বাচনে জিতে দুধ দিয়ে গোসল করলেন চেয়ারম্যান!

ভরা মৌসুমেও নদীতে ইলিশের দেখা নেই!

আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি
আপডেট : শুক্রবার, ২৮ আগস্ট, ২০২০
ভরা মৌসুমেও নদীতে ইলিশের দেখা নেই!
সংগৃহিত ছবি

বর্ষায় নদীতে ইলিশের সমারোহ হওয়ার কথা। কিন্তু এবার ইলিশের দেখা পাচ্ছে না জেলেরা। এতে অনেকেই হতাশ হয়ে পড়েছেন। বিশেষণ করে যারা ইলিশ শিকার করে জীবিকা নির্বাহ করেন সেই সব জেলেদের অবস্থা খুবই নাজুক।

তারা জানান, ইলিশের ভরা মৌসুমে বঙ্গোপসাগরসহ উপকূলীয় নদ-নদীতে ইলিশের দেখা মিলছে না। জেলেরা জাল ফেলে ইলিশ না পেয়ে খালি হাতে ফিরছেন কূলে। নিজেদের খাওয়ার মাছও পাচ্ছেন না জেলেরা।

এদিকে পর্যাপ্ত ইলিশ না পাওয়ার কারণে জেলে পল্লীগুলোতে হাহাকার অবস্থা বিরাজ করছে। ঋণের বোঝা বাড়ছে জেলেদের। হতাশ ফিশিং ট্রলার মালিক ও আড়ৎদাড়রা।

বরগুনার আমতলী ও তালতলীর জেলে পল্লীগুলোতে খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, মৌসুম শুরু হলেও সমুদ্রে ও উপকূলীয় নদ-নদীতে ইলিশ মাছ পড়ছে না। অনেক ফিশিং ট্রলার ইলিশ মাছ না পাওয়ায় সমুদ্রে মাছ ধরতে না গিয়ে ঘাটে অলস সময় পার করছেন।

আরও পড়ুন : সদরঘাটে লঞ্চডুবি : মামলা তদন্তে ধীরগতি : বেরিয়ে যাচ্ছে আসামিরা

চলতি বছরের মৌসুম ছাড়া আমতলী-তালতলীর পায়রা (বুড়িশ্বর) নদীতে ইলিশের দেখা মিললেও এখন ভরা মৌসুমে ইলিশ নেই বললেই চলে। ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা ও করোনার প্রাদুর্ভাব ছড়িয়ে পড়ায় জেলেরা এক রকম খেয়ে না খেয়ে দিনযাপন করেছেন।

এখন আবার ইলিশ মৌসুমে সমুদ্রে ও নদ-নদীতে মাছ না থাকায় আমতলী উপজেলার গুলিশাখালী নাইয়াপাড়া, বৈঠাকাটা, লোচা, বালিয়াতলী, তালতলীর নলবুনিয়া, জয়ালভাঙ্গা, ফকিরহাট, চরপাড়া জেলে পল্লীগুলোতে হাহাকার অবস্থা বিরাজ করছে।

গুলিশাখালী নাইয়াপাড়ার জেলে মো. রফিক বিশ্বাস বলেন, ইলিশের ভরা মৌসুমে বঙ্গোপসাগরসহ উপকূলীয় নদ-নদীতে ইলিশ নেই বললেই চলে। মৌসুমের বাইরেও ইলিশ পাওয়া যায়। এখন অবস্থা তার থেকেও খারাপ।

তালতলীর ফকিরহাট মৎস্য আড়ৎদার সমিতির সভাপতি ও সোনাকাটা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সুলতান ফরাজী টেলিফোনে বলেন, নিষেধাজ্ঞা শেষে ট্রলার মালিকরা মোটা অঙ্কের টাকা খরচ করে সমুদ্রে ট্রলার পাঠিয়ে খরচের টাকাও তুলতে পারছেন না। ভরা মৌসুমে বর্তমানে যেভাবে সমুদ্র ও উপকূলীয় নদ-নদীতে ইলিশের আকাল পড়েছে তাতে ফিশিং ট্রলার মালিক ও আড়ৎদাড়দের ধার-দেনায় জড়িয়ে পড়ে খেয়ে না খেয়ে থাকতে হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আবহাওয়া