বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪, ০৮:৫৮ অপরাহ্ন

বেশি বয়সে বিয়ে নিয়ে মুখ খুললেন আশিস

বিনোদন ডেস্ক
আপডেট : শনিবার, ২৭ মে, ২০২৩
বেশি বয়সে বিয়ে নিয়ে মুখ খুললেন আশিস

বিনোদন ডেস্ক : 

বয়স প্রায় ৬০ ছুঁইছুঁই। এই বয়সে এসে দ্বিতীয়বার বিয়ের পিঁড়িতে বসে তাক লাগিয়ে দিয়েছিলেন সবাইকে। দর্শক-অনুরাগীদের শুভেচ্ছায় যেমন সিক্ত হয়েছেন তেমনি আবার কটাক্ষের শিকারও হয়েছেন জাতীয় পুরস্কারজয়ী ভারতীয় অভিনেতা আশীষ বিদ্যার্থী। গত বৃহস্পতিবার (২৫ মে) কলকাতার একটি ক্লাবে পরিবার ও কাছের বন্ধুদের সঙ্গে নিয়ে আসামের মেয়ে রূপালী বড়ুয়ার সঙ্গে আইনি বিয়ে করেন তিনি।

শুক্রবার (২৬ মে) সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয় বিয়ের ছবি। আশিসের মতো রূপালীর এটি দ্বিতীয় বিয়ে। রূপালীর আগের স্বামী ছিলেন চিকিৎসক। ইংল্যান্ডে থাকতেন তারা। ইংল্যান্ডে স্বামী রিতমের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে একটি ফ্যাশন স্টোর চালাতেন রূপালী।

শুক্রবার (২৬ মে) রাতে ফেসবুকে লাইভ করেন অভিনেতা। সেখানে তিনি যেমন তার প্রাক্তন স্ত্রী পিলু বিদ্যার্থীকে নিয়ে কথা বলেন তেমনই জানালেন কীভাবে তার আলাপ হয়েছিল রুপালি বড়ুয়ার সঙ্গে। তাদের সম্পর্কের নানা অজানা কথা প্রকাশ্যে আনলেন এদিন।

আশীষ এদিন তার ভিডিওতে স্পষ্ট করে জানিয়ে দেন তার বা পিলুর কারো একে অন্যের বিরুদ্ধে কোনও রাগ নেই। তারা তাদের সম্পর্ক বন্ধুত্বপূর্ণভাবে দুজনের সহমতিতে শেষ করেছেন। তাদের ২২ বছরের বিবাহ জীবন ভাঙার কারণও এদিন জানান আশীষ।

অভিনেতা লাইভে এসে বলেন, দিন শেষে আমরা সবাই কিন্তু খুশি থাকতে চাই। আর এই খুশির জন্য আজ থেকে ২২ বছর আগে আমরা একে অন্যের হাত ধরেছিলাম। বিয়ে করেছিলাম। আমাদের জীবনে আমাদের সন্তান অর্থ আসে। তারও আজ বয়স ২২ বছর। কিন্তু এত সুন্দর একটা সময় কাটানোর পর আমি আর পিলু ক্রমশ বুঝতে পারছিলাম যে আমরা আর ভালো নেই। বরং আমরা আমাদের ভবিষ্যতটা অনেকটাই আলাদাভাবে দেখি। যদিও আমরা দুজনেই আপ্রাণ চেষ্টা করেছিলাম এই বিয়েটা টিকিয়ে রাখার জন্য। কিন্তু তারপর বুঝি এতে কেবল একে অন্যের ওপর বোঝা হয়ে থাকব আমরা। তাই সরে আসার সিদ্ধান্ত নিই।

এদিন আশীষ তার দ্বিতীয় বিয়ে করার কারণ জানান। পাশাপাশি প্রকাশ্যে আনেন কীভাবে তার সঙ্গে রুপালির আলাপ হয়েছিল। অভিনেতার কথায়, ‘আমি কারো সঙ্গে থাকতে চেয়েছিলাম। কারো হাত ধরতে চেয়েছিলাম। এই ভাবনাটা আজ নয়, ২ বছর আগেই এসেছিল। আমার যখন ৫৫ বছর বয়স তখন আমি সিদ্ধান্ত নিই যে আমি আবার বিয়ে করব। তখনই আমার আলাপ হয় রুপালির সঙ্গে। আমরা কথা বলা শুরু করি। তারপর গত বছর আমরা দেখা করি। তখনই আমরা একে অন্যের প্রতি আকর্ষিত হই এবং মনে হয় যে বাকি জীবন আমরা স্বামী-স্ত্রী হিসেবে কাটাতে পারি।’

আশিস আরও বলেন, আমি কখনও শুধু সম্পর্কে থাকতে চাইনি, আমি বিয়েই করতে চেয়েছিলাম। তখন ওকে জিজ্ঞেস করি- বিয়ে করবে কিনা। সে রাজি হয়ে যায়। ওর বয়স ৫০, আমার ৫৭, আমার ৬০ বছর বয়স নয়। কিন্তু বিষয়টা বয়সের নয়। কারণ যেকোনো বয়সেই আমরা খুশি থাকতে পারি।

আশিসের দ্বিতীয় বিয়ে প্রসঙ্গে প্রাক্তন শাশুড়ি শকুন্তলা বলেন, আশিস- রাজশী বিচ্ছেদের সময় আমার সঙ্গে কোনো আলোচনা করেনি। ওরা দু’জনেই প্রাপ্তবয়স্ক। এ ক্ষেত্রে আমার কিছু বলার নেই।

যদিও প্রাক্তনের দ্বিতীয় বিয়েতে বেশ কষ্ট পান প্রাক্তন স্ত্রী রাজশী। যেকারণে ৭ ঘণ্টার মাথায় নিজের অনুভূতি দুইবার ইনস্টাগ্রামে শেয়ার করেন তিনি। তবে প্রথমে মেনে নিতে কষ্ট হলেও এখন অনেকটা সামলিয়ে নিয়েছেন নিজেকে।

রাজশী বলেন, আশিস আমায় কোনও দিন ঠকায়নি। আমরা ভালো জুটি ছিলাম। প্রাক্তনের বিয়ে প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমার বিয়ের দরকার পড়লে আমিও করতাম। আশিস করেছে, এতে সমস্যা কী?


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আবহাওয়া