রবিবার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ০১:৪৮ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
বাংলাদেশ বা ভারত থেকে এসেছে করোনা: চীনের দাবি শিলটন এখনও ক্ষমা করেননি ম্যারাডোনাকে বিয়েতে জামাইকে একে ৪৭ উপহার শাশুড়ির (ভিডিও) ডাঙ্গা কামদিয়া মসজিদ ও মাদ্রাসা ভাঙার প্রতিবাদে মানববন্ধন যুবলীগ হবে সন্ত্রাস ও দুর্নীতিবাজ মুক্ত: নিক্সন চৌধুরী পৌর নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হলেন যারা স্বামীর সাথে বিচ্ছেদ নিয়ে যা বললেন শবনম ফারিয়া প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু রেলসেতুর ভিত্তি স্থাপন করবেন রোববার ম্যারা+ ডোনা = ম্যারাডোনার নামে জমজ দুই বোন নিজের নাম পাল্টে ‘তারা’ রাখলেন দীপিকা! ম্যারাডোনাকে শেষবারের মতো একটু দেখা করোনাভাইরাসের মধ্যেই নোরোভাইরাসের হানা রুপগঞ্জ গাউছিয়ায় হাটের দিনে লক্ষাধিক লোকের সমাগম টাঙ্গাইলে কোরআন অবমাননার প্রতিবাদে সড়ক অবরোধ আমতলীতে রোগীর চিকিৎসা করছে ওয়ার্ড বয় পৌরসভা নির্বাচনের দাবিতে আওয়ামী লীগের পথসভা ফরিদপুরে দুই দলের সংঘর্ষে আহত ২০  বদলে যাচ্ছে সদরঘাট ও বুড়িগঙ্গারপার ৮ লাখ টাকা দামের হীরা-মণি-মুক্তাখচিত মাস্ক নেপোলির সবাই ম্যারাডোনা ইউরোপা লীগের ম্যাচে!

বেঁচে যাওয়া সেই শিশুর দায়িত্ব নিলেন ডিসি

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি
আপডেট : বৃহস্পতিবার, ১৫ অক্টোবর, ২০২০
বেঁচে যাওয়া সেই শিশুর দায়িত্ব নিলেন ডিসি
সেই শিশু কোলে ডিসি

সন্ত্রাসীরা বাবা-মাসহ পরিবারের চারজনকে খুন করলেও ভাগ্যগুণে বেঁচে গেছে ছয় মাসের এক শিশু। নিহত বাবা-মার পাশেই ছিল কাঁদছিল। তার কান্না শুনেই আশপাশের লোকজন ওই বাড়িতে গিয়ে শিশুটিকে উদ্ধার করে।

সৌভাগ্যক্রমে খুনিদের হাত থেকে বেঁচে যাওয়া সেই ছয় মাসের শিশু মারিয়ার দায়িত্ব নিয়েছেন সাতক্ষীরার জেলা প্রশাসক (ডিসি) এস এম মোস্তফা কামাল। বৃহস্পতিবার দুপুরে ঘটনাস্থল কলারোয়ার খলশী গ্রামের নিহতের বাড়ি পরিদর্শন করেন। এ সময় তিনি শিশু মারিয়ার সকল দায়িত্বভার গ্রহণ করেন।

জেলা প্রশাসক বলেন, নির্মম ও নৃশংসভাবে হত্যার শিকার হয়েছেন এক পরিবারের স্বামী-স্ত্রী, ছেলে-মেয়েসহ চারজন। তবে খুনিরা ছয় মাসের শিশুটিকে হত্যা করেনি। সৌভাগ্যক্রমে সে বেঁচে যায়।

তিনি বলেন, মায়ের গলাকাটা লাশের পাশে কাঁদছিল শিশু মারিয়া। শিশুটির পরিবারে এখন আপনজন বলতে কেউ নেই। আত্মীয়-স্বজনও কেউ নেই। শিশুটির দায়িত্ব নিয়েছি আমি।

আরও পড়ুন : ধর্ষণ মামলায় দেশে প্রথম ৫ জনের মৃত্যুদণ্ডাদেশের রায়

আপতত দেখভালের জন্য স্থানীয় নারী ইউপি সদস্যকে দায়িত্ব দিয়েছি। শিশুটির পরিবারের কোনো স্বজন শিশুটির দাবি করলে আইনগতভাবে সমাধান করা হবে। শিশুটি এখন থেকে আমার তত্বাবধানে থাকবে।

এদিকে শিশুটি দেখার জন্য বিকেলে কলারোয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মৌসুমী জেরিন কান্তা ঘটনাস্থলে যান। এ সময় তিনি শিশুটির বিষয়ে খোঁজখবর নেন ও শিশুখাদ্যসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের কথা বলেন।

বৃহস্পতিবার ভোরে কলারোয়া উপজেলার হেলাতলা ইউনিয়নের খলিসা গ্রামে মাছের ঘের ব্যবসায়ী মো. শাহীনুর রহমান (৩৯), তার স্ত্রী সাবিনা খাতুন (৩৩), ছেলে সিয়াম হোসেন মাহি (১১) ও মেয়ে তাসমিন সুলতানাকে (১০) জবাই করে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।

পরিবারের পাঁচ সদস্যের মধ্যে চারজনকে হত্যা করলেও শিশু মারিয়াকে মায়ের মরদেহের পাশে ফেলে রেখে যায় খুনিরা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আবহাওয়া

%d bloggers like this:
%d bloggers like this: