বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ০১:৪৯ পূর্বাহ্ন

বিএনপি শুরু থেকে ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে ক্ষমতায় এসেছে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

কুড়িগ্রাম জেলা প্রতিনিধি
আপডেট : বৃহস্পতিবার, ৭ মার্চ, ২০২৪
বিএনপি শুরু থেকে ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে ক্ষমতায় এসেছে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

কুড়িগ্রাম জেলা প্রতিনিধি : 

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, বিএনপি জনবিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। তারা শুরু থেকে ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে ক্ষমতায় এসেছে। তারা সব সময় চিন্তা করে কিভাবে ক্ষমতায় আসবে।’

বৃহস্পতিবার (৭ মার্চ) দুপুরে কুড়িগ্রামে কমিউনিটি পুলিশিং ও মাদকবিরোধী সমাবেশে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান সাংবাদিকের এক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন।

আসাদুজ্জামান খান বলেন, বিএনপি একটা জনবিচ্ছিন্ন দল হয়ে গেছে। আপনারা তাদের ধ্বংসলীলা দেখেছেন। তারা ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে এ দেশে এসেছিল। রক্তের গঙ্গা বইয়ে তাদের উৎপত্তি। তারা জনগণের চিন্তা করে না, তারা দেশের ক্ষমতায় বসতে চায়। ২০০৮-এর নির্বাচনে তারা মাত্র ৩০টি সিট পেয়েছিল। ২০১৪ সালে তারা নির্বাচন না করে ধ্বংসলীলা শুরু করল, মানুষ পুড়িয়ে মারা শুরু করল। এবার আমরা দেখলাম, একই কায়দায় তারা রক্তের হলিখেলা শুরু করল। ২৮ আগস্ট তারা ধ্বংসলীলা চালিয়েছিল।

তিনি বলেন, তাদের (বিএনপি) নেতা লন্ডন থেকে দিক নির্দেশনা দেয়। কিন্তু তাদের নেতাকর্মীর কী হবে সেটা চিন্তা করে না। তাদের ভুল যদি উপলব্ধিতে না আসে তাহলে তাদের অস্তিত্ব থাকবে বলে মনে হয় না।

তিনি আরও বলেন, স্থানীয় নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন নৌকা প্রতীক থাকবে না। স্থানীয় সরকারে যে পারবে সে নির্বাচন করবে। তাই যারা বলেন যে আমাদের দেশে গণতন্ত্রের চর্চা হয় না, গণতন্ত্রের চর্চা নেই- তাদের দেশে কতখানি আছে তা নিয়ে আমার প্রশ্ন আছে।

আসাদুজ্জামান খান বলেন, কোনো কোনো দেশে ২০ পার্সেন্ট, ২৫ পার্সেন্ট ভোট কাস্ট হয়। এবার আমাদের নির্বাচনে ৪২ পার্সেন্ট কাস্ট হয়েছে। এরপরও যদি কেউ বলে নির্বাচন সুষ্ঠু হয়নি, তাহলে আর আমাদের কিছু বলার থাকে না। আমাদের একটি সংবিধান রয়েছে। এর ধারাকে অব্যাহত রাখার জন্য জনগণ ও দেশকে কীভাবে এগিয়ে নিয়ে যাবেন আমাদের প্রধানমন্ত্রী সে চিন্তা করছেন। কাজেই কোন দেশ কী বললো তা মুখ্য বিষয় নয়। আমাদের মুখ্য বিষয় হলো, জনগণকে কীভাবে এগিয়ে নিয়ে যাব, গণতন্ত্রের চর্চাটা কীভাবে আরও সুন্দর করব।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সুষ্ঠু গণতান্ত্রিক ধারা বজায় রাখতে আমাদের একটা গঠনতন্ত্র রয়েছে। এই ধারাকে অক্ষুণ্ণ রাখতে প্রধানমন্ত্রী সব সময় জনগণের চিন্তা করছেন। জনগণকে আরো কিভাবে সম্পৃক্ত করবেন, দেশকে কিভাবে এগিয়ে নেবেন তার চিন্তা করছেন। কাজেই কোন দেশ কী বলল তা আমাদের মুখ্য বিষয় না। আমাদের মুখ্য বিষয় হলো আমাদের জনগণকে কিভাবে এগিয়ে নিতে পারব, আমরা আমাদের গণতন্ত্রের চর্চাটা আরো কিভাবে সুন্দর করব এগুলো আমাদের বিষয়।

তিনি বলেন, জেলা লেভেলে মানীয় প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন নৌকা প্রতীক থাকবে না। যে পারে সে নির্বাচন করবে স্থানীয় সরকারে। তাই আমরা মনে করি, আমাদের দেশে যদি গণতন্ত্রের চর্চা না হয়, যাঁরা বলেন গণতন্ত্রের চর্চা নাই তাঁদের দেশে কতখানি আছে তা নিয়ে আমার প্রশ্ন আছে।

গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে বিভিন্ন সময় বিদেশিদের মন্তব্যের বিষয়ে জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, অনেক দেশে গণতন্ত্রের চর্চা কীভাবে করে আপনারা সাংবাদিকরা তা জানেন। একটি সুষ্ঠু গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত রাখার জন্য আমরা সংবিধান অনুযায়ী কাজ করছি। দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য জনগণকে কীভাবে সম্পৃক্ত করা যায় আমাদের প্রধানমন্ত্রী সে চিন্তা করছেন। এখন প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা দিয়েছেন, স্থানীয় সরকার নির্বাচনে নৌকা প্রতীক থাকবে না। যিনি পারবেন নির্বাচন করবেন। আমি মনে করি, যারা বলেন আমাদের দেশে গণতন্ত্রের চর্চা নেই, তাদের দেশে কতটুকু রয়েছে সেটি নিয়ে আমার প্রশ্ন রয়েছে।

এ সময় কুড়িগ্রাম-২ আসনের সংসদ সদস্য হামিদুল হক খন্দকার, কুড়িগ্রাম-৩ আসনের সংসদ সদস্য সৌমেন্দ্র প্রসাদ পাণ্ডে, কুড়িগ্রাম-৪ আসনের সংসদ বিল্পব হাসান পলাশ, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আব্দুল্লাহ আল মাসুদ চৌধুরী, রংপুর রেঞ্জের ডিআইজি মো. আব্দুল বাতেন, কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসক মো. সাইদুল আরীফ, পুলিশ সুপার আল আসাদ মো. মাহফুজুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. জাফর আলী, সাধারণ সম্পাদক আমান উদ্দিন আহমেদ মন্জুসহ পুলিশের কর্মকর্তা ও দলীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আবহাওয়া