শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ১২:৫৬ পূর্বাহ্ন

বিএনপি একটি ডামি দল, জনগণ তাদের বিরুদ্ধে অসহযোগ শুরু করেছে : কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপডেট : বৃহস্পতিবার, ২১ ডিসেম্বর, ২০২৩
বিএনপি একটি ডামি দল, জনগণ তাদের বিরুদ্ধে অসহযোগ শুরু করেছে : কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

বিএনপিকে ডামি দল বলে আখ্যায়িত করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, যারা আন্দোলন থেকে পালিয়ে গেছে তারাই এখন অসহযোগ আন্দোলনের ডাক দিয়েছে। জনগণই বিএনপির বিরুদ্ধে অসহযোগ শুরু করেছে। দলটির ডাকে দেশের মানুষে কোনো সাড়া নেই। তার প্রমাণ হচ্ছে হাটবাজার সব খোলা।

বৃহস্পতিবার (২১ ডিসেম্বর) রাজধানীর ধানমন্ডিতে অবস্থিত আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বাংলাদেশে প্রথম কিংস পার্টির নাম বিএনপি। তারাই তো ডামি দল। ভুঁইফোর, প্যাড সর্বস্ব, দুর্নীতিবাজদের নিয়ে জিয়াউর রহমান বিএনপি বানিয়েছে। জন্মগতভাবে বিএনপি গণতন্ত্র হত্যাকারী নির্বাচনবিরোধী দল।

আওয়ামী লীগের তথাকথিত ডামি প্রার্থীর প্রসঙ্গ টেনে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি নিজেই একটি ডামি দল। ভুঁইফোড় ও দুর্নীতিবাজদের নিয়ে জিয়াউর রহমানই বিএনপি দলটি বানিয়েছিলেন। জন্মগতভাবেই গণতন্ত্র হত্যাকারী ও নির্বাচন বিরোধী দল হলো বিএনপি।

এ সময় রিমোট কন্ট্রোলে নয়, মানুষকে সরাসরি মোকাবিলা করতে তারেক রহমানের প্রতি চ্যালেঞ্জ জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, জনগণ রিমোট কন্ট্রোল নেতার কথা মানবে না। পলাতক নেতা জনগণের আস্থা পায় না। সাহস থাকলে তাকে দেশে আসতে হবে। নেতা হতে হলে জেলে যাওয়ার সাহস থাকতে হবে।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, নির্বাচন করে আগামী পাঁচ বছর ক্ষমতায় থাকবে আওয়ামী লীগ। আর এ নির্বাচন পাঁচ বছরই টিকবে। বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা কারও সঙ্গে আপস করে না।

এ সময় বিএনপি-জামায়াতকে উদ্দেশ্য করে ওবায়দুল কাদের বলেন, গুপ্ত হামলা বন্ধ করুন। না হলে জনগণ আপনাদের ধরে ধরে বিচার করবে, প্রতিহত করবে। গণশাস্তির জন্য আপনারা অপেক্ষা করুন।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, বিএনপি নেতারা বলতেন শেখ হাসিনা পালিয়ে যাচ্ছে, মন্ত্রীরা পালিয়ে যাচ্ছে, আওয়ামী লীগ পালিয়ে যাচ্ছে, পালাবার জন্য কোনো অলিগলিও খুঁজে পাবে না। শেষ পর্যন্ত দেখা গেল পল্টনে ২৮ তারিখে কি যে দৌড় বিএনপি নেতাদের, এখানে গিয়ে পরে, ওখানে গিয়ে পরে। পলাতক দল এখন আবার অসহযোগ আন্দোলন ডাকে। যে দল আন্দোলনের আসন থেকে পালিয়ে গেল এখন সেই দল অসহযোগ করবে। জনগণ তাদের বিরুদ্ধে অসহযোগ শুরু করেছে। বিএনপি জামায়াত নির্বাচন বিরোধীদের বিরুদ্ধে অসহযোগ শুরু হয়েছে। তার প্রমাণ হাটবাজারে যান, রাস্তাঘাটে যান, দোকান পাটে যান, জীবনযাত্রা স্বাভাবিক।

সেতুমন্ত্রী বলেন, যে দল পালিয়ে গেল, সে দল অসহযোগ আন্দোলন করবে? জনগণ তাদের বিরুদ্ধেই অসহযোগ শুরু হয়েছে। তার প্রমাণ বাংলাদেশের হাটবাজার, দোকানপাটে জীবনযাত্রা স্বাভাবিক। এর অর্থ তাদের ডাকে জনগণ সাড়া দেয়নি। যত অগ্নিসন্ত্রাস করছে, ট্রেনে আগুন দিচ্ছে, বাস পোড়াচ্ছে ততই জনগণের বিভিন্ন কর্মক্ষেত্রে উপস্থিত স্বাভাবিক।

যাদের ট্যাক্স, বিল বাকি আছে তাদের বিল আদায়ে সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তিনি বলেন, যাদের ট্যাক্স বাকি, যাদের বিল বাকি তাদের বিল আদায় করুন। যারা লোন নিয়ে পাচার করেছে এদের তালিকা প্রস্তুত করুন। এদের ব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বাড়ি ভাড়া আদায় করতে বলছি। এদের আর কোনোভাবেই ছাড় দেওয়া হবে না। ট্যাক্স আদায় করতে হবে, সাজাও দিতে হবে। আমরা সেই পথে আছি।

বিএনপির উদ্দেশে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, এসব গুপ্ত হামলা বন্ধ করুন। তা না হলে জনগণ আপনাদের ধরে ধরে বিচার করবে। আপনাদের প্রতিহত করবে। আপনারা গণশাস্তির জন্য অপেক্ষা করুন।

বিএনপি নেতা মঈন খানের সমালোচনা করে ওবায়দুল কাদের বলেন, মঈন খান স্বপ্ন দেখেছেন নির্বাচনের পর সরকার পাঁচ দিনও টিকবে না। ইনশাআল্লাহ পাঁচ বছর টিকবে। শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর কন্যা। জীবনেও বঙ্গবন্ধু আপস করে নাই। তার কন্যার অভিধানেও আপস শব্দ নেই।

এ সময় নির্বাচনী আচরণবিধি প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, নির্বাচনী আচরণবিধি মেনে চলার ব্যাপারে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। সিলেটের জনসভায় যোগ দিতে সাধারণ যাত্রীর মতোই টিকিট কেটে বিমানে উঠেছেন তিনি। তার সঙ্গে যারা গেছেন, সবাই যার যার টিকিট কেটেছেন। সরকারি কোনো খরচে সিলেট যাওয়া-আসা করেননি শেখ হাসিনা। সেখানেও সার্কিট হাউজের ভাড়া দিয়েছেন। দলীয় পতাকা নিয়ে সভাস্থলে গিয়েছেন। অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচন করা এবং আচরণবিধি মেনে চলার ব্যাপারে আওয়ামী লীগ কতটা গুরুত্ব দেয় তার প্রমাণ আমরা দিয়েছি।

এসময় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক, দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া, শিক্ষা ও মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক শামসুন্নাহার চাপা, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডা. রোকেয়া সুলতানা, উপ প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল আউয়াল শামীম, উপ দপ্তর সায়েম খান, কার্যানির্বাহী সদস্য সাহাবুদ্দিন ফরাজী, আনোয়ার হোসেন, তারানা হালিম প্রমুখ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আবহাওয়া