বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪, ০৫:৪৮ পূর্বাহ্ন

বাংলাদেশকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে যাওয়ার জন্য খেলা হচ্ছে : শামীম ওসমান

নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি
আপডেট : শনিবার, ৩ জুন, ২০২৩
বাংলাদেশকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে যাওয়ার জন্য খেলা হচ্ছে : শামীম ওসমান

নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি : 

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমান বলেন, বাংলাদেশকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে যাওয়ার জন্য খেলা হচ্ছে। পৃথিবীর মানচিত্রে আমাদের ভৌগলিক সীমা গুরুত্বপূর্ণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাই বিরোধীরা আমাদের দেশের উপর নজর দিয়েছে। তাদের একটাই টার্গেট শেখ হাসিনাকে সরানো। গত এক বছর ধরে এই ষড়যন্ত্র বিএনপি-জামায়াত করে যাচ্ছে।

শনিবার (৩ জুন) দুপুরে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে আওয়ামী লীগের এক কর্মী সভায় অংশ নিয়ে একথা বলেন শামীম ওসমান।

তিনি বলেন, আল্লাহর উপর ভরসা রেখে, জনগণকে সঙ্গে নিয়ে চ্যালেঞ্জ করে বলতে পারি, আগামী নির্বাচন তো দূরের কথা, এরপরের নির্বাচনেও বিএনপি ক্ষমতায় আসতে পারবে না। তারা আগের চেয়ে ভয়াবহ ঘটনা ঘটানোর চেষ্টা করছে। নানা অপপ্রচার চালাচ্ছে। তাদের বিষয়ে আমাদের সজাগ থাকতে হবে।

শামীম ওসমান বলেন, ২০০১ সালের পর যে অত্যাচার হয়েছে তা আমরা ভুলি নাই। ওই ৫ বছর আমাদের অনেক নেতাকর্মীর ওপর অত্যাচার করা হয়েছে। অনেক নেতাকর্মীকে দেশ ছাড়তে বাধ্য করা হয়েছিল। মা-বোনদেরও রেহাই দেয়নি। তারা বোমা হামলার ঘটনা ঘটিয়ে আমাদের ওপর দোষ চাপিয়ে দিয়েছিল। তাদের এ অত্যাচরের ফলাফল জনগণ এখন তাদের দিয়ে দিচ্ছে। যে ছেলে মায়ের খবর রাখে না সে দলের কী খবর রাখবে? আমরা কাউকে কোনো আঘাত করি না। সবাইকে মাফ করে দিয়েছি। শয়তান শয়তানি করবে। তাই আমরা তাদের ক্ষমা করে দিয়েছি। ওই খুনিরা আবার বের হয়ে এসেছে। তারা এখন আবারো ষড়যন্ত্রের চেষ্টা করছে। সব এলাকার খবর রাখি। আমাদের সাচ্চা আওয়ামী লীগের কর্মী দরকার। যারা গা বাঁচাতে বিএনপির সঙ্গে গোপন যোগাযোগ রাখবেন, তাদের আমার দরকার নাই।

তিনি বলেন, ওই খুনীরা আবার বের হয়ে এসেছে। তারা এখন আবারও ষড়যন্ত্রের চেষ্টা করছে। সব এলাকার খবর রাখি। আমাদের সাচ্চা আওয়ামী লীগের কর্মী দরকার। যারা গা বাঁচাতে বিএনপির সঙ্গে গোপন যোগাযোগ রাখবেন, তাদের আমার দরকার নাই।

নারায়ণগঞ্জের এই সংসদ সদস্য বলেন, নারায়ণগঞ্জের একটি লোকাল পত্রিকা রয়েছে। যে পত্রিকাটি জামায়াতের টাকায় চলে। তারা নিউজ করেছে আমার আমেরিকার ভিসা নাকি বাতিল হয়ে গেছে। আপনাদের বলতে চাই, আমার ভিসা ২০২৬ সাল পর্যন্ত আছে।

তিনি বলেন, তারা আবার নিউজ করেছে শামীম ওসমান তুরস্করের পাসপোর্ট নিয়ে নাকি ইউরোপ ঘুরছে। তাদের বলতে চাই, তুরস্কের পাসপোর্ট নিয়ে ইউরোপ ঘুরা সম্ভব না। আমার ভিসার মেয়াদ ২০২৬ সাল পর্যন্ত আছে তা আমি নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের নেতাদের দেখাব। আমার ভিসা বাতিল হয়েছে কি-না তখন তা প্রমাণ হবে।

শামীম ওসমান বলেছেন, ওরা (বিএনপি) ঈদের আগে এই সোমবার থেকে হয়ত টুকটাক সহিংসতা করতে চেষ্টা করবে। ঈদের পর জুন মাসের পর জুলাই-আগস্ট-সেপ্টেম্বরে বাংলাদেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্র বানানোর জন্য নামবে।

কর্মীদের উদ্দেশ্যে শামীম ওসমান বলেন, যারা লাফালাফি করছেন আমাদের ধৈর্য কিন্তু কমে যাচ্ছে। সেদিন তাদের (বিএনপি) মিছিল হলো। সেখানে আমি একা হাজির হলাম। ওরা নিজেদের মধ্যে ঝামেলা করে আমাদের ওপর দোষ চাপাতে চেয়েছিল। ওদের ভেতর থেকেই খবর ছিল এমনটা। আমাদের ভেতর যেমন ওদের এক দুইজন আছেন ওদের ভেতরও আমার অনেক লোক আছেন। আমি খবর পেয়ে গাড়ি নিয়ে সংসদ থেকে সরাসরি চাষাঢ়া এলাম। একা গিয়ে বিজয় স্তম্ভের সামনে দাঁড়ালাম। সাংবাদিকেরা আমাকে দেখলেন। ওদেরকেও সাংবাদিকদের কেউ কেউ জানালেন শামীম ওসমান গাড়ি নিয়ে চাষাঢ়া এলাকায় বসে আছে। ওদের মিছিল শেষ, সভাও শেষ। একা শামীম ওসমানকে দেখে যদি এই অবস্থা হয়, তাহলে এই ভীমরুলের চাক দেখলে কী করবে তারা!

তিনি বলেন, জাতির পিতার কন্যা শেখ হাসিনাকে নিয়ে যেসব কথা হচ্ছে আমাদের ধৈর্য কমে যাচ্ছে। নারায়ণগঞ্জে অনেক বড় বড় নেতা আছেন। আমি তো কর্মী, নেতা না। সাবধান, ঘরে থাকতে পারবেন না। পার্লামেন্টে প্রধানমন্ত্রীকে বলেছি আপনার কথা এবার শুনবো না। আপনি জাতির পিতার কন্যা। আপনি ওদের সঙ্গে গণতন্ত্রের চর্চা করুন, আমি করতে পারবো না।

সারা পৃথিবীতে ত্রাহি অবস্থা উল্লেখ করে শামীম ওসমান বলেন, বিদেশে এক কেজি মাংসের দাম এখন ২৮২ দিরহাম। একজন ফোন করে বলল এখন আর বার্গার খেতে পারি না। আগে ছিল দাম ২০০ এখন ১২০০। অথচ সেই সুযোগ নিয়ে বিএনপি বাংলাদেশকে অশান্ত করতে চায়।

তিনি বলেন, জাতির পিতার কন্যা আল্লাহর ওপর বিশ্বাস করে মাঠে নামেন। আর বিশ্বাস করেন আপনাদের ওপর। দেশের এমন কোনো জায়গা নেই যেখানে উন্নয়ন হচ্ছে না। নারায়ণগঞ্জে দেখুন এই লিংক রোডের পাশে মেডিকেল কলেজ হবে, শেখ কামাল আইটি ইনস্টিটিউট হবে। এমন কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নেই যেখানে উন্নয়ন হয়নি।

শামীম ওসমান বলেন, নারায়ণগঞ্জের গোপালগঞ্জ হলো সিদ্ধিরগঞ্জ। সিদ্ধিরগঞ্জের নেতাকর্মীরা পদ পদবি চান না। তারা দেশের জন্য কাজ করতে চান।

সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো: মুজিবুর রহমানের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় শ্রমিক লীগের সাবেক সভাপতি আবদুল মতিন মাস্টার, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইয়াসিন মিয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক আবু বকর সিদ্দিক, প্রচার সম্পাদক তাজিম বাবু, নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খোকন শাহ, যুগ্ম সম্পাদক শাহ নিজাম, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা যুবলীগের আহ্বায়ক নাসিক ৬নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মতিউর রহমান মতি।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আবহাওয়া