শুক্রবার, ২৬ জুলাই ২০২৪, ১২:৩৮ পূর্বাহ্ন

ফ্লোরিডায় সামাজিকমাধ্যম ব্যবহার করতে পারবে না ১৪ বছরের কম বয়সীরা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :
আপডেট : মঙ্গলবার, ২৬ মার্চ, ২০২৪
ফ্লোরিডায় সামাজিকমাধ্যম ব্যবহার করতে পারবে না ১৪ বছরের কম বয়সীরা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :

সোশ্যাল মিডিয়া বা সামাজিক-মাধ্যম নিয়ে গত কিছুদিন ধরেই নানা পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে আমেরিকায়। সম্প্রতি বাইডেন সরকার সেখানে টিকটক বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বিষয়টি নিয়ে এখনো বিতর্ক চলছে। আগামী ১ জুলাই থেকে আইনে পরিণত হবে বিলটি। ফ্লোরিডার নতুন আইন অনুসারে, ১৩ বছর না হলে শিশুরা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ব্যবহার করতে পারবে না। ১৪ এবং ১৫ বছরের বালক-বালিকারা অ্যাকাউন্ট খুলতে পারবে, কিন্তু তার জন্য বাবা-মায়ের অনুমতি নিতে হবে।

সোমবার (২৫ মার্চ) ফ্লোরিডার গভর্নর জানিয়ে দিলেন, নাবালকেরা যাতে সামাজিক-মাধ্যম আর ব্যবহার করতে না পারে, তা নিয়ে একটি আইনে তিনি স্বাক্ষর করেছেন। ২০২৫ সালের ১ জানুয়ারি থেকে এই আইন কার্যকর হবে। ১৩ বছর না হলে আর সামাজিক-মাধ্যমে অ্যাকাউন্ট খোলা যাবে না সেখানে।

আইনে বলা হয়েছে, ১৩ বছর বয়স পর্যন্ত সামাজিক-মাধ্যম ব্যবহার করা যাবে না। ১৪ এবং ১৫ বছরের বালক-বালিকারা অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে পারবে, কিন্তু তার জন্য মা-বাবার অনুমতি নিতে হবে।

ফ্লোরিডার স্থানীয় সরকার জানিয়েছে, সামাজিক-মাধ্যমের এই যুগে এই আইন মা-বাবাকে বাচ্চা বড় করতে সাহায্য করবে। বস্তুত, অনেকদিন ধরেই ফ্লোরিডায় এই বিলটি নিয়ে বিতর্ক হচ্ছে। রাজ্যের স্পিকার পল রেনার চেয়েছিলেন, ১৬ বছরের নিচে কোনো নাবালক সামাজিক-মাধ্যম ব্যবহার করতে পারবে না। সেই প্রস্তাব খারিজ হলেও তার কাছাকাছি একটি প্রস্তাব শেষ পর্যন্ত আইনের চেহারা পেয়েছে।

এদিন রেনার বলেন, সামাজিক-মাধ্যম ভরে আছে পেডোফিল এবং পাচারকারীতে। তারা সামাজিক-মাধ্যমকে ব্যবহার করে নাবালকদের উত্তেজিত করে এবং অন্ধকার জগতের দিকে টেনে নিয়ে যায়।

শুধু তা-ই নয়, তার মতে, সামাজিক-মাধ্যম বাড়ন্ত শিশুদের মানসিক স্বাস্থ্যের ক্ষতি করে। এটা এক ধরনের নেশা তৈরি করে, যা বাচ্চাদের সবচেয়ে বেশি প্রভাবিত করে।

এই বিলটি নিয়ে বিতর্কের সময় দু’টি বিষয় সামনে এসেছিল। একদিকে শিশু-সুরক্ষা, অন্যদিকে, বাকস্বাধীনতা। সামাজিক-মাধ্যম ব্যবহারের অধিকার এভাবে ছিনিয়ে নেয়া যায় কি-না, তা নিয়ে অনেকেই আশঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন। কিন্তু শেষপর্যন্ত বলা হয়েছে, শিশুর মানসিক স্বাস্থ্য অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। তা-ই তাকেই সবার আগে গুরুত্ব দিতে হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আবহাওয়া