বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ০৪:০১ পূর্বাহ্ন

ফোন চুরি করেছিল যে, তারই প্রেমে পরে বিয়ে করলেন নারী

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আপডেট : বৃহস্পতিবার, ২৭ জুলাই, ২০২৩
ফোন চুরি করেছিল যে, তারই প্রেমে পরে বিয়ে করলেন নারী

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : 

প্রতিটি মানুষই জীবনে একবার হলেও প্রেমে পড়ে। সেই প্রেমে পড়া থেকে শুরু করে তা বিচ্ছেদ কিংবা পূর্ণতা পর্যন্ত প্রিয় মানুষকে ঘিরে অসংখ্য স্মৃতি থাকে মানুষের। কিন্তু এই গল্প একদমই ব্যতিক্রম, হয়তো এমনটা কখনো এর আগে হয়নি।

রাস্তায় নিজের মতো করে হাঁটছিলেন এক তরুণী। হাতে ছিল মোবাইল ফোন ও কাঁধে ব্যাগ। হঠাৎ করেই এক ব্যক্তি হাতে থাকা ফোনটি নিয়ে দৌড়ে পালিয়ে যায়। আর চোখের সামনে নিজের শখের ফোন এভাবে চুরি হতে দেখা ছাড়া কিছুই করার ছিল না ওই তরুণীর।

ঘটনা এখানেই শেষ হলে হতে পারতো। কিন্তু না, হয়তো শুরুতেই কিছুটা আভাস পেয়েছেন এক ব্যতিক্রম প্রেমের। ফোন চুরি করা তরুণ বাসায় ফিরে ফোন বের করে অবাক হয়ে যান। ফোনে তরুণীর ছবি দেখে মুগ্ধ হয়ে যান। বলা হচ্ছে ব্রাজিলিয়ান তরুণী এমানুয়েলার কথা।
ফোন চুরি করা ব্যক্তির ভাষ্যমতে এমন সুন্দরী মেয়ে সচরাচর দেখা যায় না। তারপর ফোন চুরির এই ঘটনা মোড় নিতে থাকে ভিন্ন দিকে। সুন্দরী এমানুয়েলাকে খুঁজতে থাকেন ওই ব্যক্তি।

একদিন হঠাৎ করেই তরুণী এমানুয়েলার দেখা পান ওই চোর। এরপর ভালো লাগা থেকে ভালোবাসার সম্পর্ক হয়। অর্থাৎ, ফোন চুরি থেকে হৃদয় চুরি! তারপর দুই বছর বেশ প্রেম করেন তারা। আর সম্প্রতি বিয়ে হয়েছে তাদের।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টুইটারে তাদের প্রেমের গল্প শেয়ার করেছে এই জুটি। টুইটারে শেয়ার করা তাদের রোমান্টিক সেই প্রেমের গল্প এখন পর্যন্ত ২ লাখ ৩২ হাজারের বেশি ভিউ হয়েছে।

ব্রাজিলের এক অনুষ্ঠানে ছিনতাইকারী থেকে প্রেমিক বনে যাওয়া তরুণের সাথে প্রথম ডেটের ব্যাপারে কথা বলতে গিয়ে ইমানুয়েলা নামের ওই তরুণী সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, তার প্রেমিক যে এলাকায় বসবাস করেন, একদিন সেই এলাকার সড়ক দিয়ে হাঁটছিলেন। দুর্ভাগ্যবশত আমার মোবাইল ফোনটি ছিনতাই হয়ে যায় সেদিন। কীভাবে চোর তার ফোনটি নিয়েছিল সেই স্মৃতি স্মরণ করছিলেন ইমানুয়েলা।

পরে চোর ফোনে একটি নম্বর পান। তখন তার মনে পড়ে, তিনি যার ফোন চুরি করেছেন, এটি তারই নম্বর। বেশ, এটি কারও ফোন নম্বর পাওয়ারও উপায়, স্থানীয় গণমাধ্যমকে বলেন সেই চোর। ওই নারীর সাথে ফোনে কথা হয় চোরের। এক পর্যায়ে তাদের মন দেওয়া-নেওয়া হয়ে যায়।

অজ্ঞাত সেই ফোন চোর দাবি করেন, চুরির মাঝামাঝি সময় হঠাৎ তার মন পরিবর্তন হয়ে যায়। তিনি বলেন, আমি কঠিন পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যাচ্ছিলাম। কারণ আমার কোনও নারী বন্ধু ছিল না।

কীভাবে প্রথম দেখা হয়েছিল সেই গল্প স্মরণ করে তিনি বলেন, ‘আমি ফোনে তার ছবি দেখার পর মনে মনে বলেছিলাম, কী সুন্দর শ্যামাঙ্গিনী! আপনি প্রতিদিন এমন শ্যামাঙ্গিনী দেখতে পাবেন না। পরে আমি ফোনটি চুরি করার জন্য অনুতপ্ত হয়েছিলাম।’

তাহলে আপনি প্রথমে ফোন তারপর তার হৃদয় চুরি করেছেন, ওই চোরকে মজার ছলে প্রশ্ন করেন সাংবাদিক। গত দুই বছর ধরে ডেটিং করছে ওই জুটি।

ব্রাজিলের এই জুটির প্রেমের গল্প টুইটারে শেয়ার করার পর অনেকেই নানা ধরনের হাস্যরসাত্মক মন্তব্য করেছেন। ব্রাজিলীয় সাংবাদিক বিমল্টন নেভেস কমেন্টে লিখেছেন, এটা কেবল ব্রাজিলেই সম্ভব…। আরেকজন লিখেছেন, ভালোবাসা সব কিছু করতে পারে। সূত্র: নিউইয়র্ক পোস্ট।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আবহাওয়া