মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১০:৪৩ অপরাহ্ন

ফিল্মফেয়ারকে বাথরুমের হাতলের সঙ্গে তুলনা নাসিরুদ্দিনের

বিনোদন ডেস্ক
আপডেট : সোমবার, ৫ জুন, ২০২৩
ফিল্মফেয়ারকে বাথরুমের হাতলের সঙ্গে তুলনা নাসিরুদ্দিনের

বিনোদন ডেস্ক :

অভিনয় দুরন্ত। আবার সময়ে সময়ে বিতর্কিত মন্তব্যও করে ফেলেন নাসিরুদ্দিন শাহ। এবার নিজের পাওয়া অ্যাওয়ার্ড সম্পর্কেই এমন এক মন্তব্য করে বসলেন বর্ষীয়ান অভিনেতা।

সারা জীবনে প্রচুর অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন নাসিরুদ্দিন। জাতীয় পুরস্কারও রয়েছে তার ঝুলিতে। পেয়েছেন ফিল্মফেয়ার পুরস্কার। তবে নাসিরুদ্দিনের কাছে এই অ্যাওয়ার্ডগুলোর বিশেষ মূল্য নেই। ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ড দিয়ে নিজের বাড়ির বাথরুমের হ্যান্ডেল তৈরি করিয়েছেন তিনি।

বরাবরই ঠোঁটকাটা স্বভাবের নাসির প্রায়ই বিতর্কে জড়ান। দীর্ঘ ক্যারিয়ারে দর্শকদের উপহার দিয়েছেন একাধিক মনের মতো ছবি, পেয়েছেন অজস্র পুরস্কারও। এখনো পর্যন্ত নিজের ফিল্মি ক্যারিয়ারে ৩টি জাতীয় পুরস্কার জিতেছেন নাসিরুদ্দিন শাহ। ‘পার’, ‘স্পর্শ’, ‘ইকবাল’ ছবির জন্য এই সম্মান এসেছে তার ঝুলিতে। এছাড়াও ‘আক্রোশ’, ‘মাসুম’, ‘চক্র’র মতো ক্লাসিক ছবির জন্য তার ঝুলিতে রয়েছে তিনটি ফিল্মফেয়ার পুরস্কার।

যদিও তার মতে পুরোটাই ইন্ডাস্ট্রির অন্দরের নোংরা রাজনীতির খেল। পুরস্কার আদতে ইন্ডাস্ট্রির অন্দরের লবির প্রতিফলন মাত্র, বিশ্বাস নাসিরুদ্দিনের।

সম্প্রতি ভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তার কাছে এই সব পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান সম্পর্কে জানতে চাওয়া হয়। পাশাপাশি জানতে চাওয়া হয়, সত্যি কি তার বাড়িতে দরজার হাতল হিসেবে পুরস্কার ব্যবহৃত হয়।

সোজাসাপ্টা ভঙ্গিতে অভিনেতা বলেন, যেকোনো অভিনেতা যিনি একটা চরিত্র ফুটিয়ে তুলতে জান-প্রাণ ঢেলে দিয়েছেন, তিনি ভালো অভিনেতা। যদি সবার মধ্যে থেকে একজনকে বেছে নেওয়া হয়, আর বলা হয় সবার মধ্যে ইনি সেরা, তাহলে সেটা কি ঠিক? আমার মনে হয় না। আমি ওই অ্যাওয়ার্ডগুলো নিয়ে গর্বিত নই। আমি তো শেষ দুটো পুরস্কার গ্রহণ করতেও যাইনি। তাই যখন আমি খামারবাড়ি বানানোর সিদ্ধান্ত নিই, তখন সেই অ্যাওয়ার্ডগুলো ওখানে রাখার ব্যবস্থা করি। যারাই ওয়াশরুমে যাবে তারা দুটো অ্যাওয়ার্ড হাতে পাবে, কারণ বাথরুমের দরজার হ্যান্ডেল ফিল্মফেয়ার পুরস্কার দুটি। কারণ বাথরুমের দরজার হ্যান্ডেল ফিল্মফেয়ার পুরস্কার দিয়ে বানানো।’

নাসিরের কথায়, আমার কাছে ওই সব ট্রফির কোনো মূল্য নেই। আমার বিশ্বাস ওই অ্যাওয়ার্ড লবির ফসল। কেউ তার কাজের জন্যই পুরস্কৃত হয় তেমনটা নয়। একটা সময় যখন পুরস্কার ত্যাগ করা শুরু করলাম, তারপর এলো পদ্মশ্রী আর পদ্মভূষণ সম্মান। সেই মুহূর্তে আমার মনে পড়েছিল আমার প্রয়াত বাবার কথা। তিনি বলতেন আমি এইসব বেফালতু কাজ করলে নিজেকে গাধা প্রমাণ করে ছাড়ব। রাষ্ট্রপতি ভবনে গিয়ে নিজেকে প্রশ্ন করেছিলাম, বাবা কি আজ এইগুলো দেখছে কোথাও থেকে? সেদিন মনে হয়েছিল উনি নিশ্চয় গর্বিত। ওই পুরস্কার পেয়ে আমি সম্মানিতবোধ করেছিলাম। তবে ওই ফিল্মি অ্যাওয়ার্ডে আমার আস্থা নেই।

সাম্প্রতিককালে একাধিক বিস্ফোরক মন্তব্যের জেরে লাইমলাইটে রয়েছেন এই অভিনেতা। কখনো তিনি হিটলার প্রসঙ্গে টেনে বলেছিলেন সেই সময় ইহুদিদের টার্গেট করা হতো আর এখন মুসলিমদের করা হচ্ছে—‘দ্য কেরালা স্টোরি’ নিয়ে এই মন্তব্য করেছেন নাসিরুদ্দিন। শুধু তাই নয়, মুসলিমদের ঘৃণা করা এখন লেটেস্ট ফ্যাশন এমন কথা বলতেও পিছপা হয়নি। শেষবার তাকে ‘তাজ ডিভাইডেড বাই ব্লাড’ সিরিজে মুঘল সম্রাট আকবরের চরিত্রে দেখা গিয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আবহাওয়া