শুক্রবার, ২৬ জুলাই ২০২৪, ০১:৫৯ পূর্বাহ্ন

নির্বাচনে আসছি নির্বাচন করার জন্য, চলে যাওয়ার জন্য নয় : চুন্নু

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপডেট : মঙ্গলবার, ১২ ডিসেম্বর, ২০২৩
নির্বাচনে আসছি নির্বাচন করার জন্য, চলে যাওয়ার জন্য নয় : চুন্নু

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

নির্বাচনে আসছি নির্বাচন করার জন্য, চলে যাওয়ার জন্য নয় বলে জানিয়েছেন জাতীয় পার্টির (জাপা) মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু।

মঙ্গলবার (১২ ডিসেম্বর) বনানীতে জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে সাংবাদিকের তিনি এসব কথা বলেন।

জাতীয় পার্টির মহাসচিব বলেন, নির্বাচনে আসছি নির্বাচন করার জন্য, চলে যেতে নয়। কেউ যদি বিশ্বাস না করেন, সেটা উনাদের বিষয়। আমরা বিশ্বাস-অবিশ্বাসের প্রশ্নে নেই। নির্বাচন হলো সরকার পরিবর্তনের পথ। এবারের ভোটে যেহেতু বিএনপি আসেনি, অ্যান্টি আওয়ামী লীগ ভোট অনেক বেশি। সেই ভোট আমরা পাবো। এটা আশা করে নির্বাচনে এসেছি। সেই ভোটটা পেতে গেলে সুষ্ঠু ভোটের পরিবেশ দরকার। পরিবেশ যদি হয়, তাহলে এবার আমরা ক্ষমতায় যাওয়ার স্বপ্ন দেখছি।

তিনি বলেন, জাতীয় পার্টি ইসি ও সরকারের কাছে শুধু ভোটের সুষ্ঠু পরিবেশ চেয়েছে। আর এটাই আমাদের মেইন দাবি। এটুকু হলেই নির্বাচন থেকে সরে যাওয়ার কোনও অবকাশ নেই।

এ সময় মুজিবুল হক চুন্নু বলেন, নির্বাচনি আচরণবিধি মেনে আমার নেতাকর্মীদের এলাকায় কারও কাছে ভোট চাওয়া, জনসংযোগ-প্রচার করতে বলেছি। প্রার্থীরা এলাকায় আছেন। জনগণের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করে চলছেন। সাংগঠনিক কাজকর্ম করে যাচ্ছেন।

‘জাতীয় পার্টিকে বিশ্বাস করা যায় না’- গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মন্তব্যের বিষয়ে তেমন কিছু বলতে চান না মুজিবুল হক চুন্নু। তিনি বলেন, এ বিষয়ে আমার কোনও কথা বলার সুযোগ নেই। আমাদের বিশ্বাস করবেন কি না, করেন কি না; সেটা উনার বিষয়। এ বিষয়ে আমাদের কোনও কমেন্টস নেই।

এ সময় রওশন এরশাদ প্রসঙ্গে জাতীয় পার্টির মহাসচিব বলেন, ম্যাডাম ভোটে এলে আমাদের জন্য ভালো হতো, কর্মীরাও খুশি হতো। ম্যাডাম না আসায় আমরা দুঃখিত- এমন মন্তব্য করে রওশন এরশাদ বলেন, ম্যাডাম আমাদের পার্টির প্রধান পৃষ্ঠপোষক। উনি নির্বাচন করুক, উনার ছেলে করুক এবং উনার (রওশন এরশাদ) ইচ্ছামতো আরেকজন করুক। তিন জনের জন্য মনোনয়নপত্র নিয়ে আমরা অপেক্ষা করেছি। মনোনয়ন জমা দেওয়ার শেষ দিনের আগের দিন রাত ১০টা পর্যন্ত বসেছিলাম। রওশন এরশাদকে বলেছি আপনি চাইলে আমি নিজে আপনার বাসায় মনোনয়নপত্র নিয়ে যাব। কিন্তু উনি আমাকে মনোনয়ন নিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দেননি। পরে রওশন এরশাদ বলেছেন- তিনি নির্বাচনে যাবেন না। ম্যাডাম ভোটে এলে আমাদের জন্য ভালো হতো, কর্মীরাও খুশি হতো। ম্যাডাম না আসায় আমরা দুঃখিত।

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে রওশন এরশাদের গণভবনে যাওয়ার বিষয়ে চুন্নু বলেন, উনি গণভবনে গিয়েছেন কি না, সেটি আমি জানি না। তবে উনি যেতেই পারেন। যে কোনো মানুষের যাওয়ার সুযোগ আছে। রওশন এরশাদ সংসদের বিরোধীদলের নেতা। তিনি সংসদের নেতার (শেখ হাসিনা) সঙ্গে যে কোনো সময়, যে কোনো বিষয়ে দেখা করতেই পারেন।

পশ্চিমারা যেটা চায়, সেটা বাংলাদেশের জনগণও চায় বলে মন্তব্য করেছেন তিনি বলেন, বিশেষ করে ইউএস বলেন, অস্ট্রেলিয়া বলেন, তারা নির্বাচনের বিষয়ে যেসব কথা বলছে, সেগুলো বাংলাদেশের মানুষের মনের কথা এবং আমারও মনের কথা। যদিও আমরা চাই না বাইরের কেউ আমাদের বিষয়ে এভাবে কথা বলুক। আমার মনে হয়, এই সুযোগটা আমাদের মতো রাজনৈতিক দলগুলো করে দিয়েছে। এর জন্য আমরাই দায়ী। তবে তাদের বক্তব্যের সঙ্গে আমরা একমত।

মুজিবুল হক চুন্নু বলেন, নির্বাচন সুষ্ঠু পরিবেশে, ভালোভাবে, নির্বিঘ্নে ও শান্তিপূর্ণভাবে যেন হয় এবং ভোটারদের অংশগ্রহণে যেন হয়; এজন্যই আমরা নির্বাচন কমিশন এবং শাসক দলের কাছে অনুরোধ করেছি এবং ক্ষমতাশীন দলের সঙ্গে আমরা কথা বলে যাচ্ছি।

এ সময় দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া, শফিকুল ইসলাম সেন্টু, জহিরুল আলম রুবেল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আবহাওয়া