বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪, ০৪:৫৬ পূর্বাহ্ন

নারী ক্ষমতায়নে ও নারী জাগরণে কাজ করে যাচ্ছে সরকার : প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপডেট : শনিবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০২৩
নারী ক্ষমতায়নে ও নারী জাগরণে কাজ করে যাচ্ছে সরকার : প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, এখন ইসলাম ধর্মের কথা বলে কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে নারীদের কেউ আটকে রাখতে পারবে না। নারী ক্ষমতায়নে ও নারী জাগরণে কাজ করে যাচ্ছে সরকার। বেগম রোকেয়ায় প্রত্যাশা অনেকটাই পূরণ করতে সক্ষম পেরেছে বাংলাদেশ।

শনিবার (৯ ডিসেম্বর) সকালে রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে বেগম রোকেয়া দিবস ও বেগম রোকেয়া পদক দেওয়া উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশে মেয়েরা আর পিছিয়ে নেই, রাজনীতি থেকে খেলাধুলা সবক্ষেত্রে নারীরা সফলতার সঙ্গে কাজ করছে। সাংবাদিকতা থেকে শিল্পকলা সবখানেই নারীরা সফল।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের মেয়েরা আর পিছিয়ে নেই। খেলাধুলা থেকে রাজনীতি— সব ক্ষেত্রে নারীরা সফলতার সঙ্গে কাজ করছে। সাংবাদিকতা থেকে শিল্পকলা সব জায়গায় নারীরা সফল।

শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধে নারীদের অনেক অবদান আছে। তারা যেমন ট্রেনিংয়ে গেছে, তেমনি যুদ্ধক্ষেত্রেও সহযোগিতা করেছে। তারা পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর হাতে নানা নির্যাতনের শিকার হন। অনেকে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েন।

তিনি বলেন, পরে আমি এসে এটির পথ আরও সুগম করে দেই। নাজমুন আরা আপিল বিভাগেও যান। আমার একটা আফসোস রয়ে গেছে, আমার ইচ্ছে ছিল, প্রধান বিচারপতিও নারীকে করব। পারিনি।

মায়ের কথা স্মরণ করে শেখ হাসিনা বলেন, স্বাধীনতা অর্জনের পেছনে আমার মা সবসময় বাবার পেছনে ছিলেন। সংসার সামলানো, দল সুগঠিত করা, আন্দোলন-সংগ্রাম পরিচালিত করা- সবই কিন্তু তিনি করেছেন।
আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর নিয়েও কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। হাসতে হাসতে তিনি বলেন, নতুন ঘর পেয়ে কেউ যদি আবার নতুন বউ আনতে যায়, সেটা কিন্তু পারবে না!

শেখ হাসিনা বলেন, জেন্ডার সমস্যা সমাধানে এখন ছেলেদের দিকে নজর দিতে হবে! এ কথা বলে আবার ভোট হারাব কিনা, সেটা ভাবছি!

দেশকে আরও এগিয়ে নেয়ার প্রত্যাশার কথা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, নারী-পুরুষ সবাই সমানভাবে দক্ষ জনগোষ্ঠী হিসেবে গড়ে ওঠবে। ছেলেমেয়ে উভয়েই যেন বিজ্ঞান, তথ্যপ্রযুক্তিসহ সবক্ষেত্রেই অগ্রগামী থাকে সেই পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

শেখ হাসিনা বলেন, সবচেয়ে শক্তিশালী দেশে নারী প্রেসিডেন্ট হতে পারেনি, কনটেস্ট করে হেরে যায়। আর ইসলামী সহযোগিতা সংস্থায় (ওআইসি) আমিই একমাত্র নারী সরকারপ্রধান। সেখানে অনেক ‘ব্রাদারের’ মাঝে আমি ‘অনলি সিস্টার’।

শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের দেশকে আমরা আরও এগিয়ে নিতে চাই। ২০৪১ সালের বাংলাদেশ হবে স্মার্ট বাংলাদেশ। এক্ষেত্রে নারী-পুরুষ সবাই সমানভাবে দক্ষ জনগোষ্ঠী হিসেবে গড়ে ওঠবে। সবাই প্রযুক্তি জ্ঞানসম্পন্ন দক্ষ জনশক্তি হিসেবে গড়ে উঠতে পারবে, সেই ব্যবস্থা অনুযায়ী সব পরিকল্পনা নিয়ে আমরা এগোচ্ছি।

সরকারপ্রধান বলেন, পাকিস্তান আমলে নারীদের অনেক বাধা ছিল। সেসময় নারীদের কর্মক্ষেত্রে কোনো সুযোগ দিত না। স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু মুজিব নারীদের সে সুযোগ দিয়েছেন। আইনেই ছিল জুডিসিয়ারিতে মেয়েরা যোগ দিতে পারবে না। জাতির পিতা আইন পরিবর্তন করেন। এই আইন পরিবর্তনের পর থেকে আমাদের দেশের মেয়েরা জুডিসিয়াল সার্ভিসে যোগ দিতে পারছে।

এসময় একটি আফসোসের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, একটা আফসোস রয়ে গেছে আমার, খুব ইচ্ছা ছিল একজন নারীকে আমি প্রধান বিচারপতি করে যাবো। কিন্তু আমাদের সমাজে এত বেশি কনজারভেটিভ, এগুলো ভাঙতে সময় লাগে। সেজন্য করতে পারিনি। এ আফসোসটা থেকে গেল।

তিনি বলেন, জুডিশিয়াল সার্ভিসে নারীরা অংশগ্রহণ করতে পারবেন না, এটাই ছিল পাকিস্তানের আইন। স্বাধীনতার পর জাতির পিতা সমস্ত আইনগুলো পরিবর্তন করেন। এই আইন পরিবর্তনের পর থেকে আমাদের দেশের মেয়েরা জুডিশিয়াল সার্ভিসে যোগ দিতে পারছে।

শেখ হাসিনা বলেন, আমি সরকারের এসে দেখি আমাদের উচ্চ আদালতে কোনো নারী জজ নেই। তখন আমি উদ্যোগ নিলাম, মহামান্য রাষ্ট্রপতি, প্রধান বিচারপতির সঙ্গে কথা বলেছি, আইনমন্ত্রীর সঙ্গে বলেছি— উচ্চ আদালতে কোনো জজ নিয়োগ দেওয়া হলে তাতে যদি কোনো নারী জজের নাম না থাকে, আমি কখনো ওই ফাইল সই করব না, রাষ্ট্রপতির কাছে পাঠাব না। সেই থেকে যাত্রা শুরু।

তিনি আরও বলেন, বেগম রোকেয়ার সময় মুসলমান মেয়েরা ঘরে অবরুদ্ধ থাকতো। লেখাপড়ার কোনো সুযোগ ছিল না। তবে তার স্বামী সবসময় তাকে সহযোগিতা করেছেন, তার ভাই তাকে সহযোগিতা করেছেন। তিনি নিজের প্রচেষ্টা উর্দু, বাংলা, আরবি, ইংরেজি, শিক্ষা যেগুলো গ্রহণ করা সেগুলো তার স্বামীর কাছ থেকে শিখেছেন। স্বামীর কাছে আক্ষরিক জ্ঞান এবং বই পড়ার শিক্ষা গ্রহণ করেন। স্বামীর মৃত্যুর পর তিনি তার ভাইয়ের কাছ থেকেও একটি অনুপ্রেরণা পান। তার স্বামীর নামে একটি স্কুল তৈরি করেন। স্কুল তৈরির পরও তাকে অনেক বাধা বিপত্তি মোকাবিলা করতে হয়। কারণ, স্বামীর নামে যে স্কুল করেছিলেন সেখানে ছাত্রী পড়ানো যেত না। তিনি নিজের বাড়ির বাইরে গিয়ে ছাত্রী সংগ্রহ করে নিয়ে আসতেন। এটা করতে গিয়ে অনেক পরিবারের বাধা এবং অনেক প্রতিবন্ধকতা এসেছে। তিনি দমে যাননি কখনো। তার সাহসী ভূমিকা সব সময় আমরা স্মরণ করি।

সরকারপ্রধান বলেন, ডিসেম্বর আমাদের বিজয়ের মাস। ১৯৭১ সালে আমাদের মহান নেতা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে সাড়া দিয়ে দেশের মানুষ যুদ্ধ করেছিল। বিজয় অর্জন করেছিল।

‘বেগম রোকেয়া পদক-২০২৩’ পদকপ্রাপ্ত পাঁচ বিশিষ্ট নারী হলেন- নারী শিক্ষায় বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম নারী উপাচার্য খালেদা একরাম (মরণোত্তর), নারী অধিকার প্রতিষ্ঠায় ডা. হালিদা হানুম আখতার, নারীর আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে কামরুন্নেছা আশরাফ দিনা (মরণোত্তর), নারী জাগরণে উদ্বুদ্ধকরণে নিশাত মজুমদার ও পল্লী উন্নয়নে রনিতা বালা।

পদকপ্রাপ্তদের ১৮ ক্যারেট মানের ২৫ গ্রাম স্বর্ণ নির্মিত একটি পদক, পদকের রেপ্লিকা, প্রত্যেককে চার লাখ টাকার চেক ও সম্মাননাপত্র দেওয়া হয়।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা। স্বাগত বক্তব্য দেন মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব নাজমা মোবারেক।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আবহাওয়া