শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ০৭:৪৩ পূর্বাহ্ন

দুই ভাইয়ের মৃত্যুতে বালাইনাশকের এমডি-চেয়ারম্যান গ্রেফতার

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপডেট : বৃহস্পতিবার, ৮ জুন, ২০২৩
দুই ভাইয়ের মৃত্যুতে বালাইনাশকের এমডি-চেয়ারম্যান গ্রেফতার

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার একটি বাসায় তেলাপোকা মারার ‘বিষের ক্রিয়ায়’ দুই শিশুর মৃত্যুর ঘটনায় বালাইনাশক পেস্ট কন্ট্রোল সার্ভিস কোম্পানির এমডি ও চেয়ারম্যানকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) লালবাগ বিভাগ। গ্রেফতাররা হলেন- আশরাফ ও ফরহাদ।

বৃহস্পতিবার (৮ জুন) গোপন সংবাদের ভিত্তিতে টাঙ্গাইল ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়। জাগো নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন গোয়েন্দা লালবাগ বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) মশিউর রহমান।

ডিসি মশিউর রহমান বলেন, তেলাপোকা মারার বিষক্রিয়ায় দুই শিশুর মৃত্যুর ঘটনায় লালবাগ গোয়েন্দা বিভাগ ছায়া তদন্ত শুরু করে। তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় কোম্পানির এমডি ও চেয়ারম্যানের অবস্থান শনাক্ত করা হয়। পরে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। টাঙ্গাইল ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে তাদের গ্রেপ্তার করে ঢাকায় রওনা হয়েছে ডিবির টিম।

এর আগে সোমবার (৫ জুন) রাতে কোম্পানির এক কর্মকর্তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তিনি বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার ওই বাসায় তেলাপোকা মারার বিষ স্প্রে করেছিলেন।

মঙ্গলবার (৬ জুন) সকালে ভাটারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল বাসার মুহাম্মদ আসাদুজ্জামান জানান, দুই শিশুর মৃত্যুর ঘটনায় সোমবার (৫ জুন) রাতে বালাইনাশক কোম্পানির কর্মকর্তা টিটু মোল্লাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তিনি ওই বাসায় তেলাপোকা মারার বিষ স্প্রে করেছিলেন। তাকে বিশদ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ইতোমধ্যে সাত দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

ওসি আরও বলেন, এ ঘটনায় নিহত শিশুদের বাবা মোবারক হোসেন তুষার সোমবার তিনজনকে আসামি করে একটি মামলা করেছিলেন। সেটির তদন্ত চলছে। গ্রেপ্তার টিটু মোল্লাকে জিজ্ঞাসাবাদের পর সন্দেহভাজন হলে আসামির সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। আরও গ্রেপ্তারে অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে।

গত শুক্রবার (২ জুন) বসুন্ধরার আই ব্লকের একটি নতুন বাসায় পেস্ট কন্ট্রোল সার্ভিসের কর্মীরা তেলাপোকা মারার বিষ স্প্রে করেন। এর দুদিন পর ভুক্তভোগী পরিবারটি ওই বাসায় ওঠেন। বাসায় প্রবেশ করেই অসুস্থ হয়ে পড়েন পরিবারের সদস্যরা। পরে তাদের হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে রোববার (৪ জুন) ভোরে শাহিল মোবারত জায়ান (৯) মারা যায়। একইদিন রাত ১০টায় মারা যায় শায়েন মোবারত জাহিন (১৫)।

প্রাণ হারানো দুই শিশুর মা শারমিন জাহান লিমা ও বাবা মোবারক হোসেন অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। বর্তমানে তারা সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরেছেন।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আবহাওয়া