বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ০৪:৫৪ অপরাহ্ন

দুই জেলায় সড়কে ঝরল ১০ প্রাণ

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপডেট : বুধবার, ১১ অক্টোবর, ২০২৩
দুই জেলায় সড়কে ঝরল ১০ প্রাণ

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

দেশের দুই জেলায় সাতসকালে দুটি সড়ক দুর্ঘটনায় অন্তত ১০ জনের মৃত্যুর খরব পাওয়া গেছে। এর মধ্যে মানিকগঞ্জ সদর উপজেলায় ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে বাস খাদে পড়ে চারজন এবং ময়মনসিংহের ত্রিশালে বাসচাপায় ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে।

বুধবার (১১ অক্টোবর) সকাল সাড়ে সাতটা থেকে সাড়ে আটটার মধ্যে যাত্রীবাহী বাস ও লেগুনায় এসব দুর্ঘটনা ঘটে।

জেলা প্রতিনিধিদের পাঠানো তথ্যে এসব দুর্ঘটনার চিত্র তুলে ধরা হলো-

ময়মনসিংহের প্রতিনিধি জানান, ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলায় এক বাসে যাত্রী তোলার সময় আরেক বাসের ধাক্কায় চার পোশাক শ্রমিকসহ ছয়জন নিহত হয়েছেন। এতে আহত হয়েছেন আরো ১২ জন।

বুধবার (১১ অক্টোবর) সকাল ৭টার দিকে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের উপজেলার চেলেরঘাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

ত্রিশাল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাইন উদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

নিহতরা হলেন, চুরখাই জামতলীর সাইফুল ইসলামের ছেলে কামরুজ্জামান লিটন (২৮), ত্রিশাল দক্ষিণ তেঁতুলিয়া পাড়ার আতিকুল ইসলামের মেয়ে জেসমিন আক্তার (৩০), নওপাড়া তালুকদার বাড়ির আব্দুল মোতালেবের ছেলে সিরাজুল ইসলাম (২৮), আলতাফ হোসেন (৬৫)। বাকিদের পরিচয় এখনও পাওয়া যায়নি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সদরের চুরখাই ও ত্রিশাল থেকে কয়েকজন পোশাক শ্রমিক ও সাধারণ যাত্রী শেরপুর থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী শাহ পরান নামে একটি বাসে ওঠেন। পথে চেলেরঘাট এলাকায় যেতে বাসটির চাকা ফুটো (পাংচার) হয়ে যায়। পরে বাসটি সড়কের পাশে দাঁড় করিয়ে মেরামত করা হচ্ছিল। এজন্য যাত্রীরা নেমে অন্য বাসের জন্য অপেক্ষা করছিলেন। এরই মধ্যে ইসলাম পরিবহন নামে একটি বাস থামিয়ে যাত্রীরা সেটিতে ওঠার সময় রাসেল গার্মেন্টসের একটি বাস এসে বাসটিতে ধাক্কা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই তিনজন ও ত্রিশাল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়ার পর আরও একজন মারা যান। এতে আহত হন অন্তত ১২ জন। তাদের মধ্যে সাতজনকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর আরও দুজন মারা যান।

ত্রিশাল থানার এসএই মন্জুরুল ও এসএই কাকন জানান, সড়ক দুঘর্টনায় ঘটনাস্থলে ৩ জন নিহত হন। এ ঘটনায় আরও ১১ জন আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে সাতজনকে গুরুতর অবস্থায় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ (মমেক) হাসপাতালে নেওয়া হলে সেখানে আরও তিনজনের মৃত্যু হয়।

মানিকগঞ্জের প্রতিনিধি জানান, ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের মানিকগঞ্জ বাসস্ট্যান্ডের অদূরে ভাটবাউর এলাকায় বাসের ধাক্কায় থেমে থাকা যাত্রীবাহী লেগুনার চালকসহ চার জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও ৫ জন। আহতদের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

বুধবার (১১ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ৮ টার দিকে ভাটবাউর এলাকায় ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে দুর্ঘটনাটি ঘটে।

নিহত চার জন হলেন- লেগুনার চালক ভাটবাউর গ্রামের আব্দুল মোতালেবের ছেলে জাহিদ হোসেন (৩৪), আয়শাআবেদ ফাউন্ডেশনের কর্মী স্থানীয় বাগজান গ্রামের আব্দুস সালামের স্ত্রী হেনা আক্তার (৫০), একই গ্রামের সনসুর আলীর স্ত্রী মালেকা বেগম (৫৫) ও মানিকগঞ্জ শহরের মিষ্টির দোকানের কারিগর সদর উপজেলার দিঘী ইউনিয়নের মৃত পরশ চন্দ্র মহাদেব চন্দ্র মদক (৫২)।

আহত পাঁচজনের মধ্যে তিনজন প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন এবং একজনকে মানিকগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অপর আরেকজন মুসা মিয়াকে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে উন্নত চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে। মুসা মিয়া গ্রামীণ ব্যাংক চাকরি করেন।

মানিকগঞ্জ সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আব্দুর রউফ সরকার এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মানিকগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এই বিষয়ে ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, যাত্রীবাহী লেগুনাটি মানিকগঞ্জ বাসস্ট্যান্ডের দিকে আসছিল। পথে যাত্রী নামানোর জন্য ভাটবাউর এলাকায় থামে লেগুনাটি। এসময় পেছন থেকে অন্য আরেকটি স্টাফ বাস সজোরে ধাক্কা দিলে লেগুনা পার্শ্ববর্তী খালে পড়ে যায় এবং আংশিক তলিয়ে যায়। দুর্ঘটনাস্থলেই তিনজন মারা যায় এবং বাকি এক জন হাসপাতালে নেওয়ার পথে মারা যায়।

পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা লেগুনাকে উদ্ধার করে। দুর্ঘটনার পর ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে দুই ঘণ্টা যানচলাচল বন্ধ ছিল।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আবহাওয়া