বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ০৩:১৪ পূর্বাহ্ন

টানা ৩ দিনের ছুটি শেষে যানজটে নাকাল রাজধানীবাসী

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপডেট : রবিবার, ১ অক্টোবর, ২০২৩
টানা ৩ দিনের ছুটি শেষে যানজটে নাকাল রাজধানীবাসী

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

টানা তিন দিনের ছুটি শেষে সপ্তাহের প্রথম কর্ম দিবসে রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে তীব্র যানজট দেখা গেছে। সকাল থেকে রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে তীব্র যানজটে নাকাল রাজধানীবাসী।

রোববার (১ অক্টোবর) সকাল ৮টার পর থেকে রাজধানীর বিভিন্ন সড়ক ঘুরে দেখা গেছে, মানিক মিয়া এভিনিউ, খামারবাড়ী, বিজয় সরণি, ফার্মগেট এবং মহাখালী এলাকায় সকাল থেকেই তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়েছে। এদিকে কাওরান বাজার, বাংলামোটর, শাহবাগ ও মগবাজার এলাকাতেও একই চিত্র দেখা গেছে।

বৃহস্পতিবার (২৮ সেপ্টেম্বর) ঈদে মিলাদুন্নবী উপলক্ষে ছিল সরকারি ছুটি। এরসঙ্গে শুক্র ও শনিবার মিলিয়ে তিন দিনের ছুটিতে অনেকেই ঢাকার বাইরে ঘুরতে গেছেন। তাই এই সময়টাতে ঢাকা বেশ ফাঁকাই ছিল। তিন দিনের টানা ছুটির পর রোববার (১ অক্টোবর) ছিল প্রথম কর্মদিবস। এদিন সকাল ৮টার আগে সড়ক স্বাভাবিক থাকলে বেলা বাড়ার সঙ্গে শহরে যানজটের পরিমাণ বেড়েছে কয়েক গুণ। যানজটে দীর্ঘ সময় গাড়িতে বসে ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে অফিসগামী মানুষকে।

ডিএমপির ট্রাফিক বিভাগ বলছে, তিন দিন ছুটি থাকার পর সপ্তাহের প্রথম কর্মদিবসে একসঙ্গে সবাই কর্মস্থলে যাচ্ছেন। ব্যক্তিগত গাড়ি একসঙ্গে বের হওয়ায় রাস্তায় গাড়ির চাপ বেড়েছে। ফলে রাজধানীর বিভিন্ন পয়েন্টে সকাল থেকে এ যানজট সৃষ্টি হয়েছে।

তবে এর মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে বিমানবন্দরগামী আসাদগেট, খামার বাড়ি, ফার্মগেট ও বিজয় সরণির দিকে। সকাল থেকেই এসব এলাকার সড়কগুলোতে তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়েছে। গাড়ি এক জায়গাতেই দাঁড়িয়ে আছে অনেক সময়। দীর্ঘসময় গাড়িতে বসে থেকে হাল ছেড়ে হেঁটেই গন্তব্যে রওনা দিয়েছেন অনেকেই।

শ্যামলী থেকে বিআরটিসি বাসে করে গুলিস্থান যাচ্ছিলেন আকাশ। সকাল ৯টা বাসে ওঠেন তিনি। ১০টা পেরিয়ে গেলেও খামারবাড়ী অতিক্রম করতে পারেনি তাকে বহন করা বাসটি। তিনি বলেন, কাজ থাকলে সময় নিয়েই বের হই। আজও সকাল সকাল বের হয়েছিলাম। কিন্তু বাসে ওঠার পর থেকেই জ্যাম ঠেলেই যেতে হচ্ছে। একই জায়গায় দীর্ঘ সময় দাঁড়িয়ে থাকতে হচ্ছে। এ অবস্থায় চলতে থাকলে গুলিস্থান পৌঁছাতে দুপুর হয়ে যাবে।

ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে দিয়ে বিআরটিসি বাসে করে উত্তরা যাচ্ছিলেন বেসরকারি চাকরিজীবী মো. আব্দুল জলিল। সংসদ ভবনের সামনে গাড়ি আটকা পড়েছে দীর্ঘ সময় ধরে। উপায় না পেয়ে গাড়ি থেকে নেমে সময় পার করছিলেন জলিল।

তিনি বলেন, এক্সপ্রেসওয়েতে বিআরটিসির চালু হওয়ার পর এর আগেও একদিন উঠেছিলাম। তবে আজকের মতো এতো সময় লাগেনি। আজ খেঁজুর বাগান এলাকা থেকে সাড়ে ৯টায় গাড়ি ছেড়েছে, এখন প্রায় সাড়ে ১০টা বাজে। গাড়ি এখনও সংসদ ভবন এরিয়াই অতিক্রম করতে পারেনি। ১৫ মিনিটে কীভাবে যাবো, ব্রিজে ওঠার আগেই প্রায় এক ঘণ্টা চলে গেলো।

ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়েতে বিআরটিসি বাসের আরেক যাত্রী নাঈম বলেন, ব্যবসার কাজে আমাকে প্রায় প্রতিদিনই উত্তরায় যেতে হয়। রবিবার থেকে বৃহস্পতিবার, সপ্তাহে এই চার দিন প্রায় সবসময় রাস্তায় জ্যাম থাকে। এটি দীর্ঘদিন ধরে দেখে আসছি। তবে আজ প্রতিদিনের রুটিন ছাড়িয়ে গেছে, গাড়ি নড়ছেই না।

তিনি আক্ষেপ করে বলেন, ঢাকা শহরে বসবাস করাটা এখন কঠিন হয়ে পড়েছে। গাড়িতেই যদি ঘণ্টার পর ঘণ্টা চলে যায়। মানুষ কাজ করবে কীভাবে।

এ প্রসঙ্গে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) ট্রাফিক বিভাগ তেজগাঁওয়ের উপ-পুলিশ কমিশনার সাহেদ আল মাসুদ বলেন, টানা তিন ছুটিতে ছিল নগরবাসী। তিনদিন পর অফিস শুরু হওয়ায় আজ সকাল থেকে যানজট সৃষ্টি হয়েছে। অফিসগামী গাড়িগুলো একসঙ্গে সড়কে বের হয়েছে। এছাড়া শিক্ষার্থীরা স্কুল-কলেজের দিকে রওয়ানা দিয়েছেন। সব মিলিয়ে যানজটে আজকে একটু বেশি। বিভিন্ন সিগনালে একটু বেশি সময় অপেক্ষা করতে হচ্ছে গাড়িগুলোকে। তবে সড়কে যান চলাচল গতিশীলতা রাখতে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। আশা করি দুপুরের আগেই যানজট কমে যাবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আবহাওয়া