শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০, ০৮:৩৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
৮ লাখ টাকা দামের হীরা-মণি-মুক্তাখচিত মাস্ক নেপোলির সবাই ম্যারাডোনা ইউরোপা লীগের ম্যাচে! লাখ লাখ ভক্তের চোখের জলে চিরনিদ্রায় শায়িত ম্যারাডোনা চলে গেলেন বরেণ্য নাট্যব্যক্তিত্ব আলী যাকের আর্জেন্টিনার পতাকায় ১০ নম্বর জার্সিতে ম্যারাডেনা মাস্কের দামেও দ্বিতীয় ঢেউ মৃত্যুর আগে ম্যারাডোনা ১২ ঘণ্টা চিকিৎসা পাননি ম্যারাডোনার ময়নাতদন্ত রিপোর্টে যা আছে নেহা-রোহনের বিয়ের পর প্রথম ঘনিষ্ঠ ভিডিও প্রকাশ বাংলাদেশ রেলওয়ের নিয়োগ বিধি গেজেট প্রকাশ ম্যারাডোনার শেষ কথা: ‘মে সিয়েন্তো মাল’ জন্মদিনে বন্ধুকে ডেকে নিয়ে নদীতে ফেলে হত্যা! কিংবদন্তি ম্যারাডোনার ইতিহাস সেরা ৫ গোল! (ভিডিও) ম্যারাডোনার ক্রীড়া নৈপুণ্য খেলোয়াদের অনুপ্রেরণা জোগাবে করোনা আক্রান্ত বাবার জন্য এয়ার অ্যাম্বুলেন্স পাননি মেয়ে হাসপাতাল ছাড়তে চেয়েছিলেন ম্যারাডোনা কমলাপুর রেল স্টেশন ভবন ভাঙার সিদ্ধান্ত ফুটবলের কিংবদন্তি ম্যারাডোনা মারা গেছেন বিএনপি সরকারকে নামাতে গিয়ে রশি ছিঁড়ে পড়ে গেছে ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিভ্রান্তিকর টুইট!

গাইবান্ধার ফুলছড়িতে সেতুতে উঠতে ‘বাঁশের সিঁড়ি’

গাইবান্ধা প্রতিনিধি
আপডেট : রবিবার, ১৫ নভেম্বর, ২০২০
গাইবান্ধার ফুলছড়িতে সেতুতে উঠতে 'বাঁশের সিঁড়ি'
সংগৃহীত ছবি

বন্যায় ভেঙে গেছে সেতুর এ্যাপ্রোচ সড়ক। এখন বাঁশের সিঁড়ি দিয়ে উঠতে হচ্ছে সেতুতে। এতে করে মানুষের চলাচলসহ মালপত্র বহন করা কষ্টসাধ্য হয়ে উঠেছে। এ্যাপ্রোচ সড়কের অভাবে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে ২০ গ্রামের কয়েক হাজার মানুষকে।

গাইবান্ধার ফুলছড়ি উপজেলার ফুলছড়ি ইউনিয়নের টেংরাকান্দি গ্রামসংলগ্ন খালের ওপর নির্মিত পাকা সেতুটি বেহাল। গত বন্যায় সেতুটির দুপাশের অ্যাপ্রোচ সড়কের মাটি বন্যার পানির তোড়ে ধসে যায়। ফলে এলাকার লোকজনকে এখন বাঁশের সিঁড়ি দিয়ে সেতুতে উঠে যাতায়াত করতে হচ্ছে।

সেতুর ওপর দিয়ে কোনো যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকায় মালামাল পরিবহন ও পথ চলাচলে আশপাশের ২০টি গ্রামের জনগণকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

জানা গেছে, ২০০৭-০৮ অর্থবছরে ৩৮ লাখ টাকা ব্যয়ে উপজেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগ ৪০ ফুট দৈর্ঘ্যরে এ সেতুটি নির্মাণ করে। সেতুর দুপাশ বেলে মাটি দ্বারা সংযোগ নির্মাণ করায় বর্ষা মৌসুমে সেতুটির অ্যাপ্রোচ সড়কের মাটি ধসে যায়।

আরও পড়ুন : বাউফলে মাইক্রোবাসের চাপায় প্রাণ গেল কলেজ শিক্ষার্থীর

এখন পর্যন্ত এই সেতুর দুপাশের অ্যাপ্রোচ সড়ক নির্মাণের কোনো উদ্যোগ গ্রহণ করেনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

ফুলছড়ি ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের উদ্যোক্তা মো. মনোয়ার হোসেন জানান, এক মাস আগে স্থানীয় কয়েকজন যুবকের উদ্যোগে ও গ্রামবাসীর সহায়তায় সেতুর দুই প্রান্তে বাঁশের সিঁড়ি তৈরি করা হয়েছে। এখন ওই সিঁড়ি দিয়েই ঝুঁকিপূর্ণভাবে যাতায়াত করতে হচ্ছে এলাকার লোকজনদের।

ফুলছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল গফুর মন্ডল জানান, এলাকাবাসী মাটি না দেওয়ায় সংযোগ সড়ক নির্মাণ করা সম্ভব হয়নি। আগামী সেশনে কর্মসৃজন কর্মসূচি প্রকল্পের শ্রমিক দিয়ে সেতুর সংযোগ সড়ক করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আবহাওয়া

%d bloggers like this:
%d bloggers like this: