শুক্রবার, ২২ জানুয়ারী ২০২১, ০৯:৫৯ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
কুষ্টিয়ায় এসপি কাণ্ডে হাইকোর্টের নতুন নির্দেশনা ৫২ হাজার টাকায় কেনা পোশাকে সমুদ্রসৈকতে সারা ফরিদপুরে ১৪৮০ জন গৃহহীন প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঘর পাচ্ছেন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলছে ফেব্রুয়ারিতে দুই জেলেকে ধরে নিয়ে গেছে বাঘ ভারতের ভ্যাকসিন উৎপাদনকারী সেরাম ইনস্টিটিউটে আগুন বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে মেয়র কাউন্সিলরদের শ্রদ্ধাঞ্জলি শপথ নিয়ে ক্ষত মেরামতের ডাক প্রেসিডেন্ট বাইডেনের ৭ মুসলিম দেশের বিরুদ্ধে ট্রাম্পের ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা বাতিল চিত্রনায়িকা পপির বিয়ের গুঞ্জন! বিশিষ্ট অভিনেতা মুজিবুর রহমান দিলুর ইন্তেকাল স্থগিত হলো ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা হোয়াইট হাউসে ট্রাম্পের শেষ দিন কিভাবে কাটলো? ৭৫% শিক্ষার্থী দ্রুত ক্লাসে ফিরতে চায় : গণসাক্ষরতা অভিযানের সমীক্ষা রাজধানীর ভাটারায় মডেল সাদিয়ার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার নিজেকে পরিবারকে দায়মুক্ত ঘোষণা করবেন ট্রাম্প! জাসদের হাসানুল হক ইনু করোনায় আক্রান্ত নারী সাক্ষীর সঙ্গে অশোভন আচরণ: বিচারক প্রত্যাহার আইটমে গানে অর্ধনগ্ন হবেন কাজল! নির্বাচনে হেরে কান ধরে পানিতে ডুব প্রার্থীর (ভিডিও)

গত বছরের চেয়েও অনেক কম পানি পদ্মায়

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপডেট : শনিবার, ২ জানুয়ারি, ২০২১
গত বছরের চেয়েও অনেক কম পানি পদ্মায়
ফাইল ছবি

শুষ্ক মৌসুমে পানির ন্যায্য হিস্যা নিশ্চিত করতে ১৯৯৬ সালে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে গঙ্গার পানি বণ্টন চুক্তি হয়। প্রাপ্য পানি নিশ্চিত করতে প্রতি বছর ১ জানুয়ারি থেকে বাংলাদেশ ও ভারত দুই দেশের প্রতিনিধি দল ফারাক্কা পয়েন্টে এবং হার্ডিঞ্জ ব্রিজ পয়েন্টে পানির প্রবাহ পর্যবেক্ষণ করে।

পদ্মা নদীর হার্ডিঞ্জ ব্রিজ পয়েন্টে ভারতীয় দলের পর্যবেক্ষণে গত বছরের একই সময়ের তুলনায় কম পানি প্রবাহ পাওয়া গেছে। ভারতের সঙ্গে পানি চুক্তি অনুযায়ী দুই দেশের যৌথ পানি পর্যবেক্ষণ শনিবার (২ জানুয়ারি) থেকে শুরু হয়েছে।

পদ্মার পানি পর্যবেক্ষণ ও পরিমাপের জন্য ভারতীয় প্রতিনিধি দল শনিবার সকাল থেকে হার্ডিঞ্জ ব্রিজের আড়াই হাজার ফুট উজানে পানি পরিমাপ শুরু করেন। এই দলে রয়েছেন ভারতের কেন্দ্রীয় পানি কমিশনের উপপরিচালক শ্রী ভেঙ্কটেশ্বর এবং কমিশনের সহকারী পরিচালক শ্রী নগেন্দ্র কুমার। তাদের সঙ্গে বাংলাদেশের হাইড্রোলজি বিভাগের কর্মকর্তারা রয়েছেন।

পাবনা হাইড্রোলজি বিভাগের ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী প্রকৌশলী রইচ উদ্দিন বলেন, পরিমাপের প্রথম দিনে আমরা হার্ডিঞ্জ ব্রিজ পয়েন্টে প্রায় ৮০ হাজার কিউসেক পানি প্রবাহ পেয়েছি। অথচ গত বছর একই সময়ে পদ্মায় পানি ছিল ১ লাখ ২ হাজার কিউসেক। এ বছর ২২ থেকে ২৩ হাজার কিউসেক কম পানি প্রবাহ রয়েছে।

আরও পড়ুন : বরযাত্রীবাহী ট্রলারডুবি: নববধূসহ ৭ জনের মৃত্যু

তবে প্রবাহ কম থাকলেও চুক্তি অনুযায়ী বাংলাদেশ পানি পাচ্ছে এমনটাই দাবি করেছে পানি পরিমাপের কাজে যুক্ত কর্মকর্তারা।

রইচ উদ্দিন বলেন, গঙ্গায় পানি প্রবাহ কম থাকায় পদ্মাতেও প্রবাহ কম থাকতে পারে। চুক্তি অনুযায়ী বাংলাদেশ পানি পাচ্ছে কি না সেটা যৌথ নদী পর্যবেক্ষক দলের সংগ্রহ করা উপাত্ত পর্যালোচনা করে নিশ্চিত হওয়া যাবে।

চুক্তি অনুযায়ী বাংলাদেশের সর্বনিম্ন ৬৭ হাজার ৬৫০ কিউসেকের চেয়ে বেশি পানি নদীতে থাকায় দুশ্চিন্তার কোনো কারণ নেই বলে তিনি মনে করছেন।

অপরদিকে ভারতে চার সদস্যের বাংলাদেশি পানি পর্যবেক্ষক দল ফারাক্কার দুটি পয়েন্টে পর্যবেক্ষণ শুরু করেছেন। দলের নেতৃত্বে রয়েছেন যৌথ নদী কমিশনের নির্বাহী প্রকৌশলী এ কে এম সাইফুদ্দিন। প্রতি ১০ দিন অন্তর অন্তর দুই পর্যবেক্ষক দলের উপাত্ত পর্যালোচনা করে চূড়ান্ত হিসাব দেওয়া হবে বলে জানান তিনি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আবহাওয়া

%d bloggers like this:
%d bloggers like this: