শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ০৫:৫১ পূর্বাহ্ন

কোরবানির বর্জ্য ৮ ঘণ্টায় পরিষ্কার করা হবে : আতিক

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপডেট : সোমবার, ১৯ জুন, ২০২৩
কোরবানির বর্জ্য ৮ ঘণ্টায় পরিষ্কার করা হবে : আতিক

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

আসন্ন ঈদুল আজহায় ৮ ঘণ্টার মধ্যে কোরবানির বর্জ্য পরিষ্কারের ঘোষণা দিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম।

সোমবার (১৯ জুন) রাজধানীর হোটেল শেরাটনের গ্র্যান্ড বল রুমে আয়োজিত ‘স্মার্ট বাংলাদেশ, স্মার্ট হাট’ স্লোগানে ডিএনসিসি’র কোরবানির পশুর হাটে ডিজিটাল পদ্ধতিতে লেনদেন ব্যবস্থা বিষয়ক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

আতিকুল ইসলাম বলেন, আমি যখন মেয়র হিসেবে দায়িত্ব নিয়েছি তখন কোরবানির বর্জ্য অপসারণ হতো ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে। এরপরের বছর থেকে কোরবানির বর্জ্য অপসারণ শেষ করতাম ২৪ ঘণ্টার মধ্যে। গত কোরবানির ঈদে বর্জ্য অপসারণ করেছি ১২ ঘণ্টায়। এবার ঘোষণা দিতে চাই, সবার চেষ্টায় এবার আমরা উত্তর সিটি করপোরেশন ৮ ঘণ্টার মধ্যে কোরবানির বর্জ্য অপসারণ করব। এবার আমাদের টার্গেট আট ঘণ্টার মধ্যেই কোরবানির বর্জ্য অপসরণ করা।

তিনি বলেন, বিশ্ব প্রতিযোগিতার এ বাজারে স্মার্ট হওয়ার কোনো বিকল্প নেই। ভিশন থাকতে হবে পরিবর্তনের,যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা করেছে। আমরা স্মার্ট মনিটরিংয়ের জন্য স্মার্ট পশুর হাট পেলাম, যেখানে সর্বোচ্ছ সেবা নিশ্চিত করা হবে। সার্বজনীন কিউআর কোডভিত্তিক ক্যাশলেস লেনদেন ব্যবস্থায় অন্তর্ভুক্ত হতে যাচ্ছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) এলাকা। ইতোমধ্যে রাজধানীর গুলশান-১ এর ডিএনসিসি মার্কেটে চালু হয়েছে ক্যাশলেস লেনদেন। আগামী ১ বছরের মধ্যে ডিএনসিসি এলাকায় ক্যাশলেস লেনদেন নিশ্চিত করা হবে।

ডিএনসিসি মেয়র বলেন, কোরবানির বর্জ্য অপসারণের সঙ্গে জড়িত ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের সব কর্মকর্তা-কর্মচারীর ছুটি বাতিল করা হয়েছে। পাশাপাশি বর্জ্য অপসারণ সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য তদারকি টিম, কমিটি গঠন করে দিয়েছি। বর্জ্য অপসারণ কার্যক্রমে আমাদের ১১ হাজার কর্মী মাঠে থাকবে।

আতিকুল ইসলাম বলেন, যারা কোরবানি করবেন সেসব নাগরিকদের জন্য ৯ লাখ পলিব্যাগ আমরা বিতরণ করব, তাদের বাড়িতে পৌঁছে দেওয়া হবে। এই পলিব্যাগে কোরবানির বর্জ্য ঢুকিয়ে আপনারা রেখে দেবেন, সেগুলো আমরা অপসারণ করে নেব। তবে অনুরোধ এসব পলিব্যাগে আপনারা যেন মাংস ঢুকিয়ে ফ্রিজে না রাখেন। এগুলো বর্জ্য অপসারণের জন্য আমরা তৈরি করেছি।

তিনি বলেন, ডিএনসিসি অস্থায়ী ৮টি কোরবানির পশুর হাটের আয়োজন করেছে। এছাড়া দুই একদিনের মধ্যে আরও একটি হাট চূড়ান্ত হবে। অর্থাৎ ডিএনসিসির এই নয়টি অস্থায়ী হাট এবং গাবতলী স্থায়ী হাটসহ মোট ১০টি হাটের বাইরে আর কোনো হাট ডিএনসিসি এলাকায় থাকবে না। এর বাইরে কোথাও যদি রাস্তা দখল করে হাট বসানো হয় তাহলে আমি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে অনুরোধ করব এসব হাটের বিরুদ্ধে আপনারা ব্যবস্থা নেন, অনুমোদন ছাড়া কোথাও যেন হাট বসতে না পারে।

ডিএনসিসির স্মার্ট হাট প্রসঙ্গে মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘স্মার্ট বাংলাদেশ, স্মার্ট হাট’ স্লোগানে ডিএনসিসির ৮টি অস্থায়ী পশুর হাটে ডিজিটাল পদ্ধতিতে লেনদেন ব্যবস্থা থাকবে, আর এই হাটগুলোই হবে স্মার্ট হাট। আমরা ধীরে ধীরে স্মার্ট বাংলাদেশের দিকে যাচ্ছি। এরই অংশ হিসেবে সব লেনদেন হবে স্মার্টলি। তেমনি কোরবানির পশুর হাটে আমরা ক্যাশলেস লেনদেন করতে পারব। এরইমধ্যে ১০ হাজার খামারির অ্যাকাউন্ট খোলা হয়েছে এই লেনদেনের জন্য। সেক্ষেত্রে টাকা নিয়ে আমাদের আর হাটে যেতে হবে না, গরুর মালিকরাও টাকা নিয়ে বাড়ির ফেরার সময় সমস্যায় পড়বে না। কারণ লেনদেন হবে ডিজিটালি।

স্মার্ট হাটে ক্যাশলেস চালু হলে মলম পার্টি বা ছিনতাইকারীর দৌরাত্ম্য বন্ধ হয়ে যাবে জানিয়ে তিনি বলেন, ডিএনসিসির সকল লেনদেনে স্মার্ট সেবা নিশ্চিত করা হয়েছে। এতে পশুর হাটে মলম পার্টি বা ছিনতাইকারীর যে ভয় থাকে তা আর থাকবে না। মলম পার্টি বা ছিনতাইকারীর দৌরাত্ম্য বন্ধ হয়ে যাবে।

সংবাদ সম্মেলনে ডিএনসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সেলিম রেজাসহ স্মার্ট হাটের সহযোগী ব্যাংকগুলোর কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আবহাওয়া