রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ১১:০৫ অপরাহ্ন

এবার নাভালনির বিধবা স্ত্রীকে গ্রেপ্তারের নির্দেশ দিল রাশিয়া

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আপডেট : বুধবার, ১০ জুলাই, ২০২৪
এবার নাভালনির বিধবা স্ত্রীকে গ্রেপ্তারের নির্দেশ দিল রাশিয়া

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : 

ভিন্নমতের বিরুদ্ধে দমন-পীড়ন অব্যাহত রেখেছে রাশিয়া। দেশটিতে এবার প্রয়াত বিরোধী নেতা আলেক্সি নাভালনির বিধবা স্ত্রীকে গ্রেপ্তারের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। চরমপন্থার অভিযোগে তার বিরুদ্ধে এই নির্দেশ দেয় রাশিয়ান আদালত।

বুধবার (১০ জুলাই) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মস্কোর একটি আদালত ইউলিয়া নাভালনায়ার বিরুদ্ধে চরমপন্থার অভিযোগে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছে। রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম জানিয়েছে, নাভালনায়া বর্তমানে রাশিয়ার বাইরে রয়েছেন।

তাস নিউজের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রাশিয়ার বাইরে বসবাসরত ইউলিয়া নাভালনায়ার বিরুদ্ধে ‘চরমপন্থি সমাজে অংশগ্রহণের’ অভিযোগ আনা হয়েছে।

বিবিসি জানিয়েছে, আলেক্সি নাভালনি রাশিয়ার সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য বিরোধী নেতা ছিলেন। আর্কটিক সার্কেলে বন্দী অবস্থায় ফেব্রুয়ারিতে তার মৃত্যু হয়। রাশিয়ান কর্তৃপক্ষ জানায়, নাভালনি প্রাকৃতিক কারণে মারা গেছেন। তবে তার বিধবা দাবি করেছেন, নাভালনিকে নির্যাতন ও ক্ষুধার্ত রেখে হত্যা করা হয়েছে।

নাভালনি চরমপন্থার অভিযোগে ১৯ বছরের কারাদণ্ড ভোগ করছিলেন, যা ব্যাপকভাবে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে মনে করা হয়।

এদিকে তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানার প্রতিক্রিয়া জানিয়ে ইউলিয়া নাভালনায়া এক্স-এ পোস্ট করে বলেছেন, ‘আপনি যখন এ বিষয়ে লিখবেন, দয়া করে মূল জিনিসটি লিখতে ভুলবেন না: ভ্লাদিমির পুতিন একজন খুনি এবং একজন যুদ্ধাপরাধী।

তিনি আরো বলেন, তার (পুতিন) জায়গা কারাগারে, হেগের কোথাও নয়। একটি টিভিসহ আরামদায়ক সেলে, তবে রাশিয়ায় সেই একই উপনিবেশে এবং একই দুই বাই তিন মিটারের সেল, যেখানে তিনি (পুতিন) আলেক্সিকে হত্যা করেছিল।
স্বামীর মৃত্যুর পর নাভালনির কাজ চালিয়ে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন নাভালনায়া। মস্কো আদালত রায় দিয়েছে, তাকে হেফাজতে নেওয়া উচিত এবং এরপরই তাকে ওয়ান্টেড ঘোষণা করা হয়।

মিসেস নাভালনায়া গত মার্চে তার স্বামীর অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ায় যোগ দিতে পারেননি। তবে এরপর তিনি মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনসহ পশ্চিমা নেতাদের সঙ্গে দেখা করেছেন।

সম্প্রতি তিনি যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক হিউম্যান রাইটস ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। এটা বিশ্বজুড়ে মানবাধিকারের প্রচার ও সুরক্ষার জন্য কাজ করে। নাভালনায়া বলেছেন, পুতিনের বিরুদ্ধে তার স্বামী যে লড়াই করেছেন, তা তিনি আরও জোরদার করবেন।

নাভালনি মূলত চরমপন্থার অভিযোগে ১৯ বছরের কারাভোগ করছিলেন। তার বিরুদ্ধে এই অভিযোগ ও সাজাকে ব্যাপকভাবে রাজনৈতিকভাবে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হিসাবে দেখা হয়।

এদিকে নিজের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানার প্রতিক্রিয়া জানিয়ে ইউলিয়া নাভালনায়া সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম এক্সে বলেছেন: ‘আপনি যখন এই বিষয়ে লিখবেন, দয়া করে মূল জিনিসটি লিখতে ভুলবেন না: ভ্লাদিমির পুতিন একজন খুনি এবং একজন যুদ্ধাপরাধী।’

তিনি আরও বলেন, ‘তার জায়গা কারাগারে এবং হেগের অন্য কোথাও নয়।’

এদিকে আলেক্সি নাভালনির মৃত্যুর পর স্বামীর কাজ চালিয়ে যাওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন নাভালনায়া। মস্কো আদালত রায় দিয়েছে, নাভালনায়াকে হেফাজতে নিয়ে রিমান্ডে নেওয়া উচিত এবং এরপরই তাকে ওয়ান্টেড ঘোষণা করা হয়।

আদালতের এই সিদ্ধান্তের অর্থ হলো, নাভালনির এই বিধবা স্ত্রী রাশিয়ায় পা রাখলে তাকে গ্রেপ্তারের মুখোমুখি হতে হবে।

উল্লেখ্য, মিসেস নাভালনায়া গত মার্চ মাসে তার স্বামীর অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ায় যোগ দিতে পারেননি। যদিও এরপর থেকে তিনি মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনসহ পশ্চিমা নেতাদের অনেকের সঙ্গেই দেখা করেছেন।

এই মাসে তিনি যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক হিউম্যান রাইটস ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। এটি একটি অলাভজনক সংস্থা যা বিশ্বজুড়ে মানবাধিকারের প্রচার ও সুরক্ষার জন্য কাজ করে।

নাভালনায়া বলেছেন, পুতিনের বিরুদ্ধে তার স্বামী যে লড়াই করেছিলেন, তা আরও জোরদার করতে তিনি তার ভূমিকা পালন করবেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আবহাওয়া