বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ১২:৫৮ পূর্বাহ্ন

আ.লীগকে কোনো অবস্থাতেই ক্ষমতায় আসতে দেয়া যাবে না : ফখরুল

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপডেট : বৃহস্পতিবার, ৪ মে, ২০২৩
আ.লীগকে কোনো অবস্থাতেই ক্ষমতায় আসতে দেয়া যাবে না : ফখরুল

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

আওয়ামী লীগ গণশত্রুতে পরিণত হয়েছে বলে দাবি করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, কোনো অবস্থাতেই আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় আসতে দেয়া যাবে না। আবার তারা ক্ষমতায় এলে দেশের অস্তিত্ব থাকবে না।

বৃহস্পতিবার (৪ মে) সাবেক মন্ত্রী সুনীল কুমার গুপ্তের ১৪তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ডিআরইউ মিলনায়তনে আয়োজিত এক স্মরণসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিএনপি মহাসচিব এসব কথা বলেন।

ফখরুল বলেন, আওয়ামী লীগ জনগণের বিরুদ্ধে, দেশের স্বাধীনতার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। তারা আবার ক্ষমতায় এলে জাতির অস্তিত্ব বিপন্ন হবে। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনকে ক্ষমতায় থাকার অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে, তাই এ আইন বাতিল করছে না সরকার। নির্বাচন সামনে রেখে দলীয় পরিচয় দেখে পুলিশে নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। যারা আন্দোলন, সংগ্রাম, লড়াইয়ে অংশ নিচ্ছে, অত্যাচার, নির্যাতন করে তাদের স্তব্ধ করে দেওয়ার চেষ্টা চলছে।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ রাষ্ট্রীয় কাঠামোকে বিষাক্ত করে তুলেছে। দুঃখজনকভাবে, লজ্জাজনকভাবে আওয়ামী লীগ আজ স্বাধীনতার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে গণশত্রুতে পরিণত হয়েছে। খালেদা জিয়ার অসুস্থতা নিয়ে বিদ্রুপ করতে সরকার কুণ্ঠাবোধ করে না। অতি অল্প সময়ের মধ্যে দানবদের সরিয়ে দিয়ে জনগণের রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করতে হবে।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, যে সরকার মানুষের চোখের ভাষা বুঝতে পারে না, যে সরকার দেওয়ালের লিখন বুঝতে পারে না, যে সরকার মানুষের প্রয়োজন বুঝতে পারে না, তাকে আমরা গণশত্রু ছাড়া কী ভাবতে পারি।

মির্জা ফখরুল বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। কারণ তারা সেটিকে ক্ষমতায় থাকার হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছে। স্বাধীনতা যুদ্ধে যা ভালো অর্জন করেছি, সবকিছু সরকার হরণ করে নিয়েছে। কিন্তু দেশের মানুষ জেগে উঠেছে।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, স্বাধীনতা যুদ্ধে আমাদের যে আশা-আকাঙ্ক্ষা ছিল, একটি গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা থাকবে, সেটাকে সম্পূর্ণভাবে ধ্বংস করে দিয়ে আওয়ামী লীগ একদলীয় শাসন ব্যবস্থার দিকে এগিয়ে চলেছে। সেই পুরনো কায়দায়, যেভাবে ৭৫ সালে বাকশাল প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন দেখেছিল।

বিএনপির এই নেতা বলেন, আজকের যুব সমাজ মুক্তিযুদ্ধ দেখেনি। কিন্তু তারা দেখছে আমাদের মুক্তিযুদ্ধের সব স্বপ্ন হরণ করে নেওয়া হচ্ছে। মানুষকে স্তব্ধ করে দেওয়া হচ্ছে, যারা গণতন্ত্রের জন্য লড়াই ও সংগ্রাম করছে তাদের চরম বিপর্যয়ের মধ্যে অতিক্রম করতে হচ্ছে।

ফখরুল বলেন, আওয়ামী লীগ একটি পুরনো দল। এই দলের প্রতিষ্ঠাতাকেও তারা বাদ দিয়ে দিয়েছেন। কারণ তার চিন্তা-চেতনার সাথে বর্তমান আওয়ামী লীগের কোনো মিল নেই। আজকে যারা আওয়ামী লীগের সাথে জড়িত তাদের অধিকাংশই ১৯৭১ সালের স্বাধীনতার সাথে যুক্ত ছিলেন না। এখন যারা স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি হিসেবে আমাদের দিকে আঙুল তুলতে চান তারা বলতে পারবেন- আপনাদের মধ্যে অধিকাংশ মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন। আমাদের সাথে যারা লড়াই-সংগ্রাম করছেন কাজ করছেন তাদের অধিকাংশ মুক্তিযুদ্ধের সময় সরাসরি অংশগ্রহ করেছেন।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, এদেশের মানুষ ১৯৭১ সালে স্বাধীনতার যুদ্ধের মাধ্যমে বিজয় অর্জন করেছে, স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে আন্দোলন করে পতন ঘটিয়েছে। লড়াই-সংগ্রাম করছে, যে লড়াইয়ে অবশ্যই গণতন্ত্রের বিজয় হবে। এই লড়াইয়ে অবশ্যই যারা গণতন্ত্রের পক্ষে সংগ্রাম করছেন তাদের বিজয় হবে।

আয়োজক সংগঠনের আহ্বায়ক শেখ রফিকুল ইসলাম বাবলুর সভাপতিত্বে ও সদস্যসচিব হাবিবুর রহমান বিজুর সঞ্চালনায় সভায় মধ্যে জাতীয় পার্টির একাংশের চেয়ারম্যান মোস্তফা জামাল হায়দার, গণফোরামের একাংশের সাধারণ সম্পাদক সুব্রত চৌধুরী, বিএনপির মিডিয়া সেলের আহ্বায়ক জহির উদ্দিন স্বপন, বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক জয়ন্ত কুমার কুণ্ড প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আবহাওয়া