বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ১২:৩৮ পূর্বাহ্ন

আমিনবাজার চেকপোস্টে পুলিশি তল্লাশি, আটক অর্ধশতাধিক

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপডেট : শুক্রবার, ২৮ জুলাই, ২০২৩
আমিনবাজার চেকপোস্টে পুলিশি তল্লাশি, আটক অর্ধশতাধিক

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

আওয়ামী লীগ-বিএনপিসহ বেশ কয়েকটি রাজনৈতিক দলের সমাবেশ শুক্রবার (২৮ এপ্রিল)। সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত রাজধানীর বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্ন রাজনৈতিক দল তাদের সমাবেশের ডাক দিয়েছে। কিন্তু দেশবাসীর চোখ মূলত প্রধান দুই রাজনৈতিক দলের দিকে। নেতাকর্মী-সমর্থকসহ সাধারণ মানুষও ঢাকায় আসছেন। এ অবস্থায় রাজধানীর প্রবেশ মুখ আমিনবাজারে তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ। সন্দেহভাজন হিসেবে আটক করা হয়েছে অর্ধ শতাধিক ব্যক্তিকে।

শুক্রবার (২৮ জুলাই) রাজধানীর টেকনিক্যাল, মাজার রোড, গাবতলী ও আমিনবাজার ঘুরে এ চিত্র দেখা গেছে।

শুক্রবার (২৮ জুলাই) ভোরে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের আমিনবাজার এলাকায় গিয়ে পুলিশের নিয়মিত অস্থায়ী চেকপোস্টে তল্লাশি কার্যক্রম দেখা যায়। এ সময় আমিনবাজার ২০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের সামনে ব্যারিকেড বসিয়ে অস্থায়ী চেকপোস্টে পুলিশ বিভিন্ন পরিবহনে তল্লাশি চালায়। পুলিশ সদস্যরা ঢাকাগামী সন্দেহভাজন পরিবহন থামিয়ে তল্লাশি করছেন। এসময় প্রায় অর্ধ শতাধিক ব্যক্তিকে আটক করা হয় বলে স্থানীয় লোকজন জানিয়েছেন।

দেখা গেছে, টেকনিক্যাল, মাজার রোড বা গাবতলীতে সেভাবে চেকপোস্টের মাধ্যমে তল্লাশি না হলেও আমিনবাজারে রাজধানীগামী বাসে কঠোর তল্লাশি করছেন পুলিশ সদস্যরা। রাস্তায় বেরিকেড দিয়ে প্রত্যেক গাড়িতে ঢুকে তল্লাশি করে ছাড়া হচ্ছে। আমিনবাজারে জেলা পুলিশের পাশাপাশি জেলা ডিবি পুলিশও কঠোর নজরদারিতে দায়িত্ব পালন করছে। এ ছাড়া, আমিনবাজার ব্রিজ পার হয়ে গাবতলীতে ঢোকার মুখেই পুলিশের নজরদারি থাকলেও তল্লাশি করা হচ্ছে না। তবে কোনো গাড়িকে সন্দেহ হলেই গাবলতীতে তল্লাশীসহ গাড়ির কাগজপত্র দেখছেন পুলিশের সার্জেন্ট।

গাবতলীতে কুদ্দুস নামের এক রিকসা চালক বলেন, ভোর থেকেই গাবতলীতে আছি। কিন্তু আজ সেরকম কোনো যাত্রী নেই। আজ গাড়িও খুব কম ঢুকছে। ঢাকার বাইরে থেকে গাড়ি কম এলে, যাত্রীও কম হয়। তাছাড়া, আজকে অন্যান্য যাত্রীও সেরকম নেই। রাস্তা একদম ফাঁকা। সমাবেশের কারনে নাকি আজকে গাড়ি ও যাত্রী কম।

রাশেদ নামের পুলিশের এক দায়িত্বশীল কর্মকর্তা বলেন, আজকে রাজধানীতে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির সমাবেশ আছে। এই সমাবেশে যেকোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা প্রতিরোধে পুলিশ সচেষ্ট আছে। আমরা কোনো গাড়িই আটকাচ্ছি না। তবে প্রত্যেক গাড়িতে আমরা তল্লাশি করছি। সাধারণ জনগণের জানমাল রক্ষায় পুলিশ দায়িত্ব পালন করছে।

জানা গেছে, দুই দলের সমাবেশকে ঘিরে অন্তত ৩০ হাজার পুলিশ সদস্য মোতায়েন রয়েছে। র‌্যাব, আনসার, এপিবিএনের অন্তত পাঁচ হাজার সদস্য মোতায়েন থাকবে পল্টন, কাকরাইল, ফকিরাপুল, মতিঝিল, গুলিস্তানসহ সমাবেশের কাছাকাছি এলাকায়।

ঢাকা জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম অ্যান্ড অপস ও ট্রাফিক উত্তর বিভাগ) আব্দুল্লাহিল কাফী জানান, নিয়মিত তল্লাশির অংশ হিসেবে আমাদের এখানে সবসময় তল্লাশি চালানো হয়। এছাড়া সাভারের বিরুলিয়া, আশুলিয়ার ধউর, জিরানী, জিরাবো ও বাইপাইল এলাকায় চেকপোস্ট কার্যক্রম চলছে। আজ ঢাকায় দুটি দলের কর্মসূচি থাকায় কেউ যাতে কোনো ধরনের নৈরাজ্য চালাতে না পারে তাই তল্লাশিতে জোর দিচ্ছি। এসময় বিভিন্ন পরিবহনে তল্লাশি চালিয়ে সন্দেহভাজন ব্যক্তিদের আটক করা হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আবহাওয়া