শুক্রবার, ১২ জুলাই ২০২৪, ১১:৩১ অপরাহ্ন

আনাচে-কানাচে ছড়িয়ে থাকা মেধাবীদের খুঁজে বের করা হবে: প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপডেট : সোমবার, ২৪ জুন, ২০২৪
আনাচে-কানাচে ছড়িয়ে থাকা মেধাবীদের খুঁজে বের করা হবে: প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক :

দেশের আনাচে-কানাচে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা মেধাবীদের খুঁজে বের করে তাদের মেধা বিকাশ করাই সরকারের লক্ষ্য বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সোমবার (২৪ জুন) রাজধানীর ওসমানি স্মৃতি মিলনায়তনে ‘মাধ্যমিক থেকে স্নাতক (পাস) ও সমমান পর্যায়ের মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে ২০২৩-২৪ অর্থবছরের উপবৃত্তি ও টিউশন ফি বিতরণ কার্যক্রম’ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রযুক্তি, বিজ্ঞান ও গবেষণা ছাড়া আধুনিক যুগে টিকে থাকা কঠিন। এ কারণেই প্রযুক্তি শিক্ষাকে গুরুত্ব দিয়েছে সরকার। ১৯৯৬ সালের আগে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে ছিল অস্ত্রের ঝনঝনানি। সেই সময়ের শিক্ষা পদ্ধতি ছিল মান্ধাতা আমলের। ছিল সেশন জটও। গবেষণা খাতেও ছিল না কোনো বরাদ্দ।

সরকারপ্রধান বলেন, বিনামূল্যে বই বিতরণ কার্যক্রমকে অনেকেই অসম্ভব কাজ বলেছিল। তবে আওয়ামী লীগ সরকার সেই অসম্ভবকে সম্ভব করেছে। শিক্ষার্থীরা শিক্ষা নিয়ে যাতে উপার্জন করতে পারে সেই ব্যবস্থা করে দেয়া হয়েছে। ফ্রিল্যান্সিং যে একটি পেশা হতে পারে সেই বিষয়টিও গুরুত্বের সাথে দেখেছে সরকার।

শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের প্রিয় শিক্ষার্থীদের বলবো আমরা দায়িত্ব নেওয়ার পর, আওয়ামী লীগ সরকার দায়িত্ব নেওয়ার পরই পরিবর্তনশীল বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে সৃজনশীল শিক্ষার ব্যবস্থা, পাঠ্যপুস্তক, পাঠ্যপুস্তকের শিক্ষাক্রম সব কিছু আমরা (আধুনিক করি)।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এখন যদি সারাক্ষণ কেউ বলে পড় পড় পড়, এটা কি ভালো লাগে বলো। মোটেই ভালো লাগে না। যাও একটা পড়ার ইচ্ছে থাকে তাও নষ্ট হয়ে যায়। সেজন্যই এমন ভাবে শিক্ষা ব্যবস্থাটা করা যে আগ্রহ নিয়েই ছেলেমেয়েরা পড়বে।

নতুন কারিকুলাম নিয়ে অনেকের সমালোচনা প্রসঙ্গে সরকার প্রধান বলেন, জানি, একটা পরিবর্তন এলে অনেকেই নানা ধরনের কথা বলেন। আমরা পরচর্চা করতে খুব পছন্দ করি। পরচর্চা ছাড়া তো আসরেই জমে না।

শেখ হাসিনা বলেন, শিক্ষামন্ত্রী বলছে এটা লিখলো, ওটা লিখলো। আমি বলেছি এটা লিখলো-ওটা লিখলো শুনবা না তো। নিজের মনে আত্মবিশ্বাস থাকতে হবে। নিজের ওপর বিশ্বাস থাকতে হবে। দায়িত্ব যখন নেবে দেশের জন্য কোনটা ভালো সেটা নিজের চিন্তা থেকে আসতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, কেউ একটু সমালোচনা করলেই ওমনিই সেটার জন্য ভীত হয়ে যেতে হবে। আমি এটা বিশ্বাস করি না। শিক্ষার্থীদের এটাই বলবো সব সময় আত্মবিশ্বাস থেকে চলা শিখতে হবে। তাহলে এই দেশকে তোমরা এগিয়ে নিয়ে যেতে পারবে।

অনুষ্ঠানে বৃত্তিপ্রাপ্তদের অনভূতি শোনেন প্রধানমন্ত্রী। পরে তিনি বলেন, ‘আমাদের ছেলেমেয়েদের মধ্যে যে মেধা রয়েছে, এতক্ষণ যাদের বক্তব্য শুনলাম। আমি সত্যিই মুগ্ধ হয়ে গেছি। এত জ্ঞান তো আমাদেরও নেই, সত্যি কথা বলতে গেলে! এত সুন্দর করে আমরাও বোধহয় বক্তৃতা দিতে পারি না। এত সুন্দরভাবে অনুভূতি ব্যক্ত করে, প্রত্যেকটা দিক তুলে ধরা। প্রত্যেককের বক্তব্যে ভিন্ন ভিন্ন দিক উঠে এসেছে। আমি কথাগুলো শোনার পরে, সত্যি কথা বলতে কি, আমি খুব স্বস্তি অনুভব করছি এই কারণে যে, আগামী দিনে বাংলাদেশ এই বাংলাদেশ এগিয়ে চলার বাংলাদেশ। বদলে যাওয়া বাংলাদেশ। এই এই বাংলাদেশ নিয়ে আর আমাদের দুশ্চিন্তার কিছু নেই।’

তিনি বলেন, এখন আমাদের ছোট্ট সোনামনিরাই নিয়ে যাবে এই বাংলাদেশকে স্মার্ট বাংলাদেশ করে। ভবিষ্যতে পরিচালনাও তারা করবে। চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের উপযুক্ত দক্ষ কারিগর অর্থাৎ স্মার্ট সিটিজেন হিসেবে গড়ে উঠবে আমাদের এই আজকের ছেলেমেয়েরা, এটাই আমি বিশ্বাস করি।

সরকারপ্রধান বলেন, অনেক হিরার টুকরা ছড়িয়ে আছে, সেগুলো কুড়িয়ে আনা; সেটাই আমাদের মূল্য উদ্দেশ্য। মেধাবী ছাত্রছাত্রী বা মেধাবী শক্তিটা যেন আমাদের দেশের উন্নয়নে কাজে লাগে, আমরা সেটাই চাই। সেই জন্য এই বঙ্গবন্ধু শিক্ষা সহায়তা ট্রাস্ট ফান্ডের মাধ্যমে সাহায্য দিয়ে যাচ্ছি। তাছাড়া আমাদের বিভিন্ন প্রকল্পের মাধ্যমে উপবৃত্তি দেওয়া হচ্ছে। তবে প্রকল্প শেষ হয়ে গেলে একটা অসহায়ত্ব দেখা যায়। সেটা যাতে না হয়, সেজন্য এই ট্রাস্ট ফান্ডটাকে বড় করে সমস্ত বৃত্তিগুলো এর মাধ্যমে দিতে পারলে এটা স্থায়ী বন্দোবস্ত হয়ে যাবে। তখন আর কেউ এটা নষ্ট করতে পারবে না। আমরা ধীরে ধীরে সেই ব্যবস্থাটাই নিবো।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘দারিদ্র্য যেন প্রতিবন্ধকতা তৈরি করতে না পারে। অনেক মেধাবী শিক্ষার্থী আমাদের। তাদের বাবা-মা পড়াতে পারে না। এজন্য শিক্ষা সহায়তা ফান্ড করে বৃত্তি দিচ্ছি। দরিদ্র্য মেধাবী শিক্ষার্থীদের পড়াশোনা ও গবেষণায় সহায়তার জন্যই আমাদের এই উদ্যোগ।’

তিনি বলেন, আমাদের দেশে যারা বিত্তবান, তারা যদি এই ট্রাস্ট ফান্ডে অনুদান দেয়, আমরা আরও বেশি ব্যবহার করতে পারবো। তবে আমি আমাদের বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল ট্রাস্ট থেকে অন্তত দুই কোটি টাকা অনুদান দেবো। এটা আমি কথা দিচ্ছি। এটা আমার বোর্ড মিটিংয়ে আলোচনা করতে হবে। ছোটবোন রেহানার সঙ্গে আলোচনা করে এটা আমি দিয়ে দেবো। আমরা নিজেরাও বৃত্তি দিচ্ছি। কিন্তু আমি মনে করি, এখানে দিতে পারলে সেটা আমাদের আত্মতৃপ্তি হবে। এই ট্রাস্টটা তো আমাদের বাবার নামেই করেছি।

সৃজনশীল শিক্ষা ব্যবস্থা নিয়ে সমালোচনার জবাবে তিনি বলেন, ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ যার যা খুশি লিখে। আমরা বাঙালি পরচর্চায় পছন্দ করি। পরচর্চা ছাড়া তো আসলেই জমে না। যে যা মনে করে লিখে দেয়। এজন্য আমি শিক্ষামন্ত্রীকে বলেছি, এটা লিখলো, ওটা লিখলো শোনবা না। নিজের মনের আত্মবিশ্বাস থাকতে হবে। নিজের ওপর বিশ্বাস থাকতে হবে। আর দেশের দায়িত্ব যখন নিবে, দেশের জন্য কোনটা ভালো সেটা নিজের চিন্তা থেকে আসতে হবে। কেউ একটু সমালোচনা করলেই ওটার জন্য ভীতু হয়ে যেতে হবে, আমি এটা বিশ্বাস করি না।

শিক্ষার্থীদের তিনি বলেন, আত্মমর্যাদাবোধ, আত্মবিশ্বাস এটাই মানুষকে শক্তি যোগায়। কে কি বললো, ওটা নিয়ে চোখের পানি ফেলবা, নিজের মুখ লুকাবা, তা নয়। নিজের বিশ্বাস থেকে চলা শিখতে হবে। তাহলে এদেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারবে। আমাদের দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তোলতে হবে। আমরা যে পরিকল্পনা নিয়েছি, কর্মসূচি নিচ্ছি, এটা বছরের পর বছর প্রজন্মের পর প্রজন্ম যারা আসবে তাদেরকেই করতে হবে। তোমাদেরই করতে হবে। পারবে না, তোমরা? পারবে? বলো।

এসময় শিক্ষার্থীরা সমস্বরে ‘জি পারবো’ বলে উঠে। জবাবে ফের প্রধানমন্ত্রী বলেন, আলহামদুলিল্লাহ। আমার এটাই সব থেকে আনন্দের বিষয়।

শেখ হাসিনা বলেন, শিক্ষাকে আমরা সব চেয়ে বেশি গুরুত্ব দেই। এবারের বাজেটেও ৯৪ হাজার ৭১০ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছি। শিক্ষাখাতে বাজেট বৃদ্ধির কারণে সমাজে ইতিবাচক প্রভাব পড়বে। কারণ শিক্ষাটা আমাদের কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আমি যখন সরকার গঠন করি, আমাদের সাক্ষরতার হার ছিল মাত্র ৪৫ ভাগ। এখন সেটা ৭৬.৮ ভাগ।

প্রধানমন্ত্রী  বলেন, আমাদের প্রিয় শিক্ষার্থীদের বলবো আমরা দায়িত্ব নেওয়ার পর, আওয়ামী লীগ সরকার দায়িত্ব নেওয়ার পরই পরিবর্তনশীল বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে সৃজনশীল শিক্ষার ব্যবস্থা, পাঠ্যপুস্তক, পাঠ্যপুস্তকের শিক্ষাক্রম সব কিছু আমরা আধুনিক করি।

তিনি বলেন, মেধা অন্বেষণ, মেধার মাধ্যমে শিক্ষাকে আরও আপন করে নেওয়া, শিক্ষাটা একটা আনন্দমুখর পরিবেশে করা, সেই পদ্ধতিটাতে আমরা আসতে চাই।

শেখ হাসিনা বলেন, এখন যদি সারাক্ষণ কেউ বলে পড় পড় পড়, এটা কি ভালো লাগে বলো। মোটেই ভালো লাগে না। যাও একটা পড়ার ইচ্ছে থাকে তাও নষ্ট হয়ে যায়, এটা কিন্তু বাস্তব কথা। সেই জন্য এমনভাবে শিক্ষা ব্যবস্থাটা করা যে আগ্রহ নিয়েই ছেলেমেয়েরা পড়বে, পড় পড় করতে হবে না বা ধরে পেটাতে হবে না। নিজেরাই পড়বে, নিজেদের মধ্যেই সেই আকাঙ্খাটা থাকবে। আমরা সেই সিস্টেমটাই তৈরি করতে চাই।

শেখ হাসিনা বলেন, আমরা সমস্ত টেলিফোন সিস্টেমকে ডিজিটালাইজ করি। কম্পিউটার শিক্ষার জন্য সুযোগ সৃষ্টি করে দেই। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের যাত্রা শুরু হয় দুই তিনটা কম্পিউটার দিয়ে। ছেলেমেয়েরা যাতে শিক্ষা নিতে পারে তার ব্যবস্থা আমরা নিয়েছি। তাছাড়া আইন পাশ করে ১২টা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় নির্মাণ কাজ শুরু করি।

তিনি বলেন, ৭৫ পরবর্তী যারা ক্ষমতায় ছিল তারা গবেষণায় কোনও বরাদ্দ দেয়নি। গবেষণা আমাদের কোনও বরাদ্দ ছিল না। আমাদের প্রথম বাজেট অল্প ছিল। সেখান থেকেও গবেষণার জন্য টাকা দিয়ে দেই। পরে যখন বাজেট দেই তখন ১০০ কোটি টাকা থোক বরাদ্দ দিয়েছিলাম। সেটা ছিল কম্পিউটার শিক্ষা এবং গবেষণায়। আমাদের শুধু একটা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ছিল। আমি আরও কয়েকটি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় করে দেই। সেইসঙ্গে ১৬টি বেসরকারের বিশ্ববিদ্যালয়, নভোথিয়েটার প্রতিষ্ঠা, সমুদ্র গবেষণা ইনস্টিটিউট, বায়ু টেকনোলজি ইনস্টিটিউট, এই সবগুলো আওয়ামী লীগ সরকার আমলে শুরু করেছিলাম।

সরকারপ্রধান বলেন, জাতীয় শিক্ষানীতি আমরা করে গিয়েছিলাম. ২০০১ সালে আমরা ক্ষমতা আসতে পারিনি আর বিএনপি সেটা বাতিল করে দেয়। ২০০৯ সালে যখন সরকার গঠন করি তখন শিক্ষা ও গবেষণার কাজে আমরা আরও বরাদ্দ বৃদ্ধি করি। ২০১০ থেকে আমরা বিনা পয়সায় বই দেওয়া শুরু করি। অনেকে ভেবেছে যে এটা কীভাবে সম্ভব? আমরা সে অসম্ভব কাজকে সম্ভব করেছি। ২০১০ থেকে ২০২৪ পর্যন্ত ৪শ ৬৪ লাখ ২৯ হাজার ৮৮৩ কোটি পাঠ্যপুস্তক বিনামূল্যে আমরা বিতরণ করেছি।

তিনি আরও বলেন, ২০০৯ থেকে এ পর্যন্ত ৩০টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়, ৫৪টি প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেছি। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো কৃষি, ভেটেনারি, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, চিকিৎসা, ডিজিটাল, ইসলামি আরবি, এভিয়েশন, এরোস্পেস, বেসরকারিখাতে ফ্যাশন ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। আমাদের ছেলেমেয়েরা যেন বিভিন্ন ধরনের কার্যক্রমের শিক্ষায় শিক্ষিত হতে পারে, দেশের বিদেশের কর্মমুখী শিক্ষা গ্রহণ করতে পারে সেদিকে লক্ষ্য রেখে বহুমুখী শিক্ষার ব্যবস্থা ও উচ্চশিক্ষার ব্যবস্থা করে দিয়েছি। প্রতিটি উপজেলায় কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র স্থাপন করে দিচ্ছি। কারিগরি শিক্ষা আমাদের কম ছিল সেটা আমরা বাড়িয়েছি। আমাদের সরকারি সামাজিক খাতগুলোর শিক্ষাকে আমরা সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেই। বাজেটে শিক্ষাখাতেই সবচেয়ে বেশি বরাদ্দ দেওয়া হয়।

শেখ হাসিনা বলেন, কেউ সমালোচনা করলেই সেটার জন্য ভীত হয়ে যেতে হবে আমি এটা বিশ্বাস করি না। আত্মমর্যাদাবোধ ও আত্মবিশ্বাস মানুষকে শক্তি দেয়। শিক্ষার্থীদের বলবো এটাই সবসময় চিন্তা করতে হবে। কে কী বলল তার জন্য চোখের পানি ফেলে মুখ লুকাতে হবে তা না, নিজের বিশ্বাস থেকে শিখতে হবে। তাহলে এদেশকে তোমরা এগিয়ে নিয়ে যেতে পারবে।

সরকারপ্রধান বলেন, লাখো শহীদের মাধ্যমে আমাদের স্বাধীনতা পেয়েছি, স্বাধীনতা ব্যর্থ করার জন্য অনেক চক্রান্ত হয়েছে। সব অতিক্রম করে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি। আরও এগিয়ে যেতে হবে। আজকের বাংলাদেশ বিশ্বের কাছে উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে। কিছু লোক থাকে তাদের সবসময় কোনও কিছু ভালো লাগে না। আর ভালো হতেও দিতে চায় না। তাদের পাত্তা না দিলেও চলবে। আমরা আমাদের দেশকে নিয়ে এগিয়ে যাবো। এ আত্মবিশ্বাস নিয়ে আমাদের চলতে হবে। আমরা ডিজিটাল বাংলাদেশ করেছি এখন আমাদের স্মার্ট বাংলাদেশ করতে হবে।

এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রী শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ড.কামাল আব্দুল নাসের চৌধুরী, শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী বেগম শামসুন্নাহার, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব সোলেমান খান।

এছাড়া পুরস্কার প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের মধ্যে বেশ কয়েকজন তাদের অনুভূতি প্রকাশ করেন।

 

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আবহাওয়া