শুক্রবার, ২২ জানুয়ারী ২০২১, ০৯:৩৪ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
কুষ্টিয়ায় এসপি কাণ্ডে হাইকোর্টের নতুন নির্দেশনা ৫২ হাজার টাকায় কেনা পোশাকে সমুদ্রসৈকতে সারা ফরিদপুরে ১৪৮০ জন গৃহহীন প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঘর পাচ্ছেন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলছে ফেব্রুয়ারিতে দুই জেলেকে ধরে নিয়ে গেছে বাঘ ভারতের ভ্যাকসিন উৎপাদনকারী সেরাম ইনস্টিটিউটে আগুন বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে মেয়র কাউন্সিলরদের শ্রদ্ধাঞ্জলি শপথ নিয়ে ক্ষত মেরামতের ডাক প্রেসিডেন্ট বাইডেনের ৭ মুসলিম দেশের বিরুদ্ধে ট্রাম্পের ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা বাতিল চিত্রনায়িকা পপির বিয়ের গুঞ্জন! বিশিষ্ট অভিনেতা মুজিবুর রহমান দিলুর ইন্তেকাল স্থগিত হলো ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা হোয়াইট হাউসে ট্রাম্পের শেষ দিন কিভাবে কাটলো? ৭৫% শিক্ষার্থী দ্রুত ক্লাসে ফিরতে চায় : গণসাক্ষরতা অভিযানের সমীক্ষা রাজধানীর ভাটারায় মডেল সাদিয়ার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার নিজেকে পরিবারকে দায়মুক্ত ঘোষণা করবেন ট্রাম্প! জাসদের হাসানুল হক ইনু করোনায় আক্রান্ত নারী সাক্ষীর সঙ্গে অশোভন আচরণ: বিচারক প্রত্যাহার আইটমে গানে অর্ধনগ্ন হবেন কাজল! নির্বাচনে হেরে কান ধরে পানিতে ডুব প্রার্থীর (ভিডিও)

আগামী বছর থেকে ঢাকায় বাস রুট রেশনালাইজেশন

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপডেট : রবিবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০২০
আগামী বছর থেকে ঢাকায় বাস রুট রেশনালাইজেশন
ফাইল ছবি

ঢাকার যানজট কমাতে উদ্যোগ নিয়েছে বাস রুট রেশনালাইজেশন কমিটি। রাজধানী ঢাকার প্রবেশমুখে ১০টি টার্মিনাল নির্মাণ করার প্রস্তাব করেছে এ কমিটি। যার ফলে আন্তঃজেলা বাসগুলো রাজধানীতে ঢুকতে পারবে না। তবে এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে সময় লাগবে। আগামী বছর থেকে এ প্রকল্পের বাস্তবায়ন শুরু হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন সংশ্লিষ্টরা

এ প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে শহরে গণপরিবহনে শৃঙ্খলা ফিরবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, রাজধানীর সায়েদাবাদ, মহাখালী ও গাবতলী এই প্রধান তিনটি টার্মিনালে বর্তমানে দেড় হাজার বাসের ধারণ ক্ষমতা রয়েছে। অথচ এসব স্থানে বাস রয়েছে প্রায় ১০ হাজারের অধিক।

এছাড়া রাজধানীর বিভিন্ন সড়কের ওপর পার্কিং করে রাখা হয় কয়েক হাজার বাস। যার ফলে সরু হয়ে যাচ্ছে যানবাহন চলাচলের সড়ক। এই দুর্ভোগ থেকে মুক্তি পেতে গাজীপুর (১১ দশমিক ৭০ একর), নবীনগর-চন্দ্রা রোডের বাইপাইল (৪০ দশমিক ৪০ একর), কাঁচপুর উত্তর (১৫ দশমিক ৪৬ একর), কাঁচপুর দক্ষিণ (২৭ দশমিক ৭১ একর), কেরানীগঞ্জের বাঘৈর (৩৩ দশমিক ৬৩ একর), সাভারের হেমায়েতপুর (৩৬ দশমিক ৫০ একর), বিরুলিয়া (১৪ দশমিক ৫৩ একর), কাঞ্চন এলাকা (২৪ দশমিক ২৪ একর), আটিবাজারের ভাওয়াল (২৫ দশমিক ৭৮ একর) এবং ভুলতা (২৪ দশমিক ২২ একর) এলাকায় টার্মিনাল করার প্রস্তাব করেছে বাস রুট রেশনালাইজেশন কমিটি।

এসব স্থানে টার্মিনাল নির্মাণ হলে আন্তঃজেলার বাসগুলো রাজধানীর মধ্যে ঢুকতে পারবে না। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা গণপরিবহনগুলো টার্মিনালেই যাত্রীদেরকে নামিয়ে দেবে। যাত্রীরা সেখানে থেকে রাজধানীতে প্রবেশ করবে নগরীর ভিতরে চলমান গাড়িতে করে। এদিকে রাজধানীর বাসগুলো ৬ কোম্পানির আওতায় ২২টি রুটে ভাগ করে চলবে। এতে নগরের গণপরিবহনে শৃঙ্খলা আসবে, কমবে যানজট।

এদিকে গণপরিবহন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাস রুট রেশনালাইজেশন কমিটির প্রস্তাবনাটি বাস্তবায়নের আগে এর সম্ভাব্যতা যাচাই করে দেখতে হবে। এ প্রকল্পে অবকাঠামোগত উন্নয়নের পর যাতে গণপরিবহনগুলো নিয়ম-নীতি মেনে চলে, তার জন্য সুনির্দিষ্ট তদারকির ব্যবস্থা করতে হবে। যাত্রীরা যাতে ভোগান্তি না পোহায়, সে লক্ষ্যে সেবার মান নিশ্চিত করতে হবে। এছাড়া বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ) ও আইন শৃঙ্খলাবাহিনীকে নিজ নিজ ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে।

জানা যায়, ডিএনসিসির তৎকালীন মেয়র আনিসুল হক ২০১৫ সালে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের দায়িত্ব গ্রহণের পর রাজধানীর যানজট কমাতে উদ্যোগী হন। গণপরিবহনে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে মাঠে নামেন। একাধিক সভা করেন গণপরিবহন বিশেষজ্ঞদের নিয়ে। বাস রুট রেশনালাইজেশন ও কোম্পানির মাধ্যমে বাস পরিচালনার সিদ্ধান্ত নেন। তবে তার মৃত্যুতে এ উদ্যোগ থেমে যায়।

পরে রাজধানীর গণপরিবহনে শৃঙ্খলা ফেরানো ও যানজট নিরসনে ২০১৮ সালের ৯ই সেপ্টেম্বর প্রেসিডেন্টের আদেশে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ড. জাফর আহমদ খান ১০ সদস্যের একটি কমিটি করে প্রজ্ঞাপন জারি করেন। এ কমিটির আহ্বায়ক করা হয় ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) সাবেক মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকনকে।

কমিটিতে রাখা হয় ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) তখনকার প্যানেল মেয়র, বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটির (বিআরটিএ) চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট করপোরেশন (বিআরটিসি) চেয়ারম্যান, রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) চেয়ারম্যান, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার, গণপরিবহন বিশেষজ্ঞ ড. এসএম সালেহ উদ্দিন, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির মহাসচিব, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন সভাপতি ও ঢাকা পরিবহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষের নির্বাহী পরিচালকে।

তখন কমিটির কার্যবিবরণীতে বলা হয়েছে, ঢাকা মহানগরীর যানজট নিরসনে বাস রুট রেশনালাইজেশন ও কোম্পানির মাধ্যমে বাস পরিচালনা পদ্ধতি প্রবর্তনের বিষয়ে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের প্রয়াত মেয়র আনিসুল হক যে পদক্ষেপগুলো নিয়েছিলেন সেগুলো বিবেচনায় নিয়ে কার্যক্রম গ্রহণ করা করতে হবে।

আরও পড়ুন : নিষিদ্ধ থ্রি-হুইলারের বিরুদ্ধে হাইওয়ে পুলিশের অভিযান

সংশ্লিষ্ট অংশীজনের মাধ্যমে বাস রুট রেশনালাইজেশন ও কোম্পানির মাধ্যমে বাস পরিচালনা পদ্ধতি প্রবর্তন করতে হবে। বাস রুট রেশনালাইজেশন ও কোম্পানির মাধ্যমে বাস পরিচালনা পদ্ধতি প্রবর্তনের রোডম্যাপসহ কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন করা ও এসব বিষয়ে জড়িত অন্যান্য কার্যক্রম গ্রহণ করা এবং কমিটির কার্যক্রম প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, স্থানীয় সরকার বিভাগ, সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগকে নিয়মিত অবহিত করতে হবে। পরে নিয়োগ দেয়া হয় পরামর্শকও। তবে গতি ফিরেনি তাতে।

দীর্ঘ দুই বছরের বেশি সময় ধরে চলেছে নানা সমীক্ষা। এই সময় কমিটির সভা হয় ১২টি। বর্তমানে ওই কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস। গত ১০ই নভেম্বর ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) নগর ভবনে বসে ১৩তম সভা। জমা দেয়া হয় সমীক্ষার প্রতিবেদন।

ওই প্রতিবেদনে প্রস্তাব করা হয়েছে নতুন ১০টি বাস টার্মিনালের। এসব টার্মিনাল নির্মাণ হলে দূরপাল্লার গণপরিবহনের কারণে সৃষ্ট যানজট থেকে মুক্তি পাবে রাজধানীবাসী।

এ ব্যাপারে ঢাকা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক খন্দকার এনায়েত উল্লাহ বলেন, ঢাকা সিটি করপোরেশনের বাইরে ১০টি টার্মিনালের প্রস্তাব করেছে বাস রুট রেশনালাইজেশন কমিটি। তবে এখনো জায়গা পূর্ণাঙ্গভাবে ঠিক হয়নি। এসব স্থানে টার্মিনাল নির্মাণ হলে শহরের যানজট কমে আসবে। আগামী বছরের কাজ শুরু হওয়ার কথা রয়েছে। এখন সরকারের ওপর সবকিছু নির্ধারণ করছে।

গণপরিবহন বিশেষজ্ঞ ড. এসএম সালেহ উদ্দিন বলেন, স্বাধীনতার পর গণপরিবহনের উপর তেমন একটা নজর দেয়া হয়নি। টার্মিনাল নিয়ে বড় ধরনের সমস্যা দেখা দিয়েছে। যার ফলে ধীরে ধীরে যানজট সৃষ্টি হয়েছে। তবে সরকার বর্তমানে আন্তরিক। আমরা রাজধানীর যানজট কমাতে ১০টি টার্মিনাল করার প্রস্তাব করেছি।

আমরা চাচ্ছি সরকারি জায়গা। সেখানে এসব টার্মিনাল নির্মাণ হবে। এতে দূরপাল্লার কোনো বাস রাজধানীতে প্রবেশ করতে পারবে না। আগামী সভায় (৮ই ডিসেম্বর) এসব কিছু নিয়ে বিশদ আলোচনা হবে। আর আগামী বছরে নির্মাণকাজ শুরু করা যাবে। তার আগে একটা বাস্তব ভিত্তিক পরিসংখ্যান তৈরি করা হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আবহাওয়া

%d bloggers like this:
%d bloggers like this: